Tuesday, 17 October 2017

এক ব্যাক্তি সংসদ ভবনের সামনের লোহার গ্রিলে সাইকেল তালা দিয়ে কোথাও যাচ্ছিলো

এক ব্যাক্তি সংসদ ভবনের সামনের লোহার গ্রিলে সাইকেল তালা দিয়ে কোথাও যাচ্ছিলো।
তখন গার্ড এসে বলে,
গার্ডঃ ভাই এখানে সাইকেল রাখা যাবে না। অন্য কোথাও রাখেন।
ব্যাক্তিঃ ভাই আমি একটু পাশেই সুসু দিতে যাচ্ছি। এখনি চলে আসবো।
গার্ডঃ না না এখানে রাখা যাবে না। জানেন না এখান দিয়ে মন্ত্রী মিনিস্টাররা চলাফেরা করে?
ব্যাক্তিঃ সমস্যা নাই ভাই, আমি সাইকেল তালা দিয়ে রেখে যাচ্ছি।

Sunday, 15 October 2017

যে দশটি কাজ করলে দশটি বিপদ অবধারিত !!

কিয়ামত পর্যন্ত তার উম্মতরা যাতে ন্যায়ের পথে থেকে
চলতে পারে সেজন্য মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) দিক
নির্দেশনা দিয়ে গেছেন।এ সম্পর্কিত একটি হাদিস
এখানে উল্লেখ করা হলো। হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু
আনহু থেকে বর্ণিতঃ-
রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘যখন আমার উম্মত ১০টা কাজ করবে,
তখন তাদের উপর বিপদনেমে আসবে। রাসূল (সা.)-কে
জিজ্ঞাসা করা হলোঃ হে রাসূল, কি সেই দশটি কাজ?
যা করলে বিপদ হবে? তিনি বললেনঃ
১। যখন রাস্ট্রীয় সম্পদকে ব্যক্তিগত সম্পত্তি মনে করা
হবে।
২। যখন আমানত হিসেবে রক্ষিত সম্পদকে লুটের মাল
হিসাবে গ্রহণ করা হবে (অর্থাৎ আত্মসাৎ করা হবে)।
৩। যাকাতকে জরিমানার মত মনে করা হবে।
৪। স্বামী যখন স্ত্রীর আনুগত্য করবে এবং মায়ের অবাধ্য
হবে।
৫। বন্ধুর প্রতি সদাচারী ও পিতার সাথে দুর্ব্যবহারকারী
হবে।
৬। মসজিদে হৈ চৈ হবে।
৭। জনগণের নেতা হবে সেই ব্যক্তি যে তাদের মধ্যেকার
সবচেয়ে নিকৃষ্ট চরিত্রের অধিকারী।
৮। মানুষকে তার ক্ষতির আশংকায় সম্মান করা হবে।
৯। গায়িকা ও বাদ্যযন্ত্রের হিড়িক পড়ে যাবে।
১০। উম্মতের পরবর্তীরা পূর্ববর্তীদেরকে অভিশাপ
দেবে। তখন আগুনের বাতাস আসবে, মাটির ধস ও দেহের
বিকৃতি ঘটবে।” সহীহ তিরমিযী; আততারগীব ওয়াত
তারহীবঃ ৩য় খন্ডঃ ১৫৪১।


Copied

Saturday, 14 October 2017

একদিন হযরত ফাতেমা(রাঃ) হযরত আলী(রাঃ) কে বললেন

ঘরে কিছু সুতা কেটেছি, এগুলো বাজারে বিক্রি করে আটা নিয়ে আসেন। ইমাম হাসান ও হোসেন দুই দিন ধরে না খেয়ে আছে।
আলী(রাঃ) সুতা নিয়ে বাজারে গেলেন এবং সুতা ৬ দিরহামে বিক্রি করলেন।
এমন সময় এক সাহাবী এসে বললেনঃ আলী কিছু দিরহাম কর্জ দেবেন? ঘরে স্ত্রী সন্তান না খেয়ে আছে।
হযরত আলী ঐ সাহাবীকে ৬ দিরহামই দিয়ে দিলেন। একটু পর এক লোক একটি উট নিয়ে এসে হযরত আলী(রাঃ) কে বললেনঃ উট কিনবেন ?
আলী(রাঃ) বললেন, আমার কাছে কোন দিরহাম নেই। লোকটি বললোঃ এখন নিয়ে যান। উটের দাম ৩০০ দিরহাম পরে দিয়ে দেবেন। এই বলে লোকটি উট রেখে চলে গেলো।
এমন সময় আরেক লোক এসে ৩০০ দিরহাম দিয়ে উটটি আলী(রাঃ) এর কাছ থেকে কিনে নিলেন।
আলী(রাঃ) তন্ন তন্ন করে খুজেও যিনি উট রেখে গিয়েছিলেন, তাকে বাজারে পেলেন না।
বাড়িতে এসে দেখেন, রাসুলুল্লাহ(সাঃ) ফাতেমার সাথে বসে আছেন। আলীকে দেখেই রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, উটের ঘটনা আমি বলবো, না তুমি বলবে ?
আলী(রাঃ) হতভম্ব হয়ে বললেন, ইয়া রাসুলুল্লাহ, আপনিই বলুন।
রাসুলুল্লাহ(সাঃ) বললেন, তোমার কাছে যিনি বাকীতে উট বিক্রি করেন, তিনি জিব্রাইল। আর যিনি তোমার কাছ থেকে উট কিনেছেন, তিনি ইস্রাফিল ফেরেশতা।
তুমি যে সুতা বিক্রির দিরহাম এক অভাবগ্রস্ত সাহাবীকে দিয়ে দিয়েছো, তার বিনিময়ে আল্লাহ দুনিয়াতেই তোমাকে কিছু পুরস্কার দিলেন। আল্লাহ তোমার কাজটিকে খুব পছন্দ করেছেন। আর তোমার পরকালের পুরস্কারতো জমাই রইলো !!!
----------------- আমিন।

Tuesday, 10 October 2017

এক শিক্ষক তার সাত বছরের ছাত্র কাযিমকে জিজ্ঞেস করল

এক শিক্ষক তার সাত বছরের ছাত্র কাযিমকে জিজ্ঞেস করল, “আমি যদি তোমাকে একটি আপেল, একটি এবং আরও একটি আপেল দিই, তাহলে তোমার কাছে মোট কতটি আপেল থাকবে?”
কয়েক সেকেণ্ডের মধ্যেই কাযিম আত্মবিশ্বাসের সাথে উত্তর দিল, “চারটি!”
বিস্মিত শিক্ষক আশা করেছিলেন সহজ ও সঠিক উত্তরটি (তিনটি), তিনি হতাশ হলেন। “কাযিম বোধয় আমার কথা ঠিকমত বুঝতে পারেনি,” তিনি মনে মনে ভাবলেন। তিনি আবার বললেন, “কাযিম…মনোযোগ দিয়ে শোন। যদি তোমাকে একটি আপেল, একটি আপেল এবং আরও একটি আপেল দিই, তাহলে তোমার কাছে মোট কতটি আপেল থাকবে?”
কাযিম তার শিক্ষকের চোখেমুখে হতাশার ছাপ দেখতে পেল। সে আবার তার আঙ্গুলে গুণে দেখল। কিন্তু এর মাঝে সে সেই উত্তরটি খুঁজছিল, যা তার শিক্ষককে খুশি করবে। কিছুক্ষণ ভেবে দ্বিধান্বিতভাবে সে উত্তর দিল,
“চার…”
শিক্ষকের চোখে মুখে হতাশা রয়েই গেল। তার মানে আসলে কাযিম স্ট্রবেরি পছন্দ করে। তিনি ভাবলেন কাযিম আপেল পছন্দ করে না, আর এটি হয়তো তার মনোযোগ নষ্ট করছে। এবার গুরুত্ব সহকারে ও সামান্য হাসি হাসি মুখে জিজ্ঞেস করলেন, “আমি যদি তোমাকে একটি স্ট্রবেরি, একটি স্ট্রবেরি এবং আরও একটি স্ট্রবেরি দিই, তাহলে তোমার কাছে মোট কতটি স্ট্রবেরি থাকবে?”
শিক্ষকের খুশি খুশি ভাব দেখে কাযিম আবার তার আঙ্গুলে গুণে দেখল। সে কোন চাপ অনুভব করল না এবার, বরং চাপে থাকল তার শিক্ষক। কারণ, তিনি চাইছিলেন তার এবারের প্রচেষ্টাটি সফল হোক।
মুখে সামান্য দ্বিধার হাসি নিয়ে জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে কাযিম উত্তর দিল, “তিনটি?”
এবার শিক্ষকের মুখে জয়ের হাসি দেখা দিল। তার প্রচেষ্টা সফল হয়েছে। কিন্তু একটি কাজ এখনও বাকি। তিনি আবার কাযিমকে জিজ্ঞেস করলেন, “এখন আমি যদি তোমাকে একটি আপেল, একটি আপেল এবং আরও একটি আপেল দিই, তাহলে তোমার কাছে মোট কতটি আপেল থাকবে?”
অনুরোধের সুরে কাযিম উত্তর দিল, “চারটি!”
শিক্ষক আবার বিস্মিত এবং হতাশ হয়ে পড়লেন। সামান্য বিরক্ত কণ্ঠে তিনি জানতে চাইলেন, “কীভাবে কাযিম?”
মৃদু কণ্ঠে কাযিম জবাব দিল, “কারণ আমার
ব্যাগে আগে থেকেই একটি আপেল আছে।”
গল্পের শিক্ষাঃ যখন আপনাকে কেউ কোন ব্যাপারে উত্তর দেয় আর সেটা আপনার আশা করা উত্তরের সাথে না মিলে, তবে ভাববেন না সেটা ভুল। কারণ, তার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আপনি হয়তো ব্যাপারটি
ভেবে দেখেননি। তাই প্রতিটি ব্যাপারে আগে মনোযোগ দিয়ে শুনবেন এবং বোঝার চেষ্টা করবেন, তবে অবশ্যই পূর্বনির্ধারিত ধারণা বা বিশ্বাস নিয়ে নয়।

Saturday, 7 October 2017

রাসূল (সাঃ) একদিন মসজিদ-ই-নববী'তে আসরের নামাজ পড়াচ্ছিলেন

দৃশ্যটি দেখে বুকের ভিতর মোচড় দিয়ে উঠল,
আল্লাহ্'র কাছে এমন একটি দৃশ্য খুবই ভাল লেগেছিল;
রাসূল (সাঃ) একদিন মসজিদ-ই-নববী'তে আসরের নামাজ পড়াচ্ছিলেন। তিনি যখন সেজদায় গেলেন, হঠাৎই হযরত ইমাম হোসাইন (রাঃ) নানাজীর পিঠের উপর উঠে বসে পড়লেন।

ইমাম হাসান (রাঃ) ও হোসাইন (রাঃ)-কে নবীজী খুবই মহব্বত করতেন। তাঁদের মনে কেউ কষ্ট দিলে তা রাসূলের অন্তরে বিদ্ধ হত।
তিনি হোসাইন (রাঃ) পিঠ থেকে ফেলতেও পারছেন না; নাতিও পিঠ থেকে নামছেন না। এদিকে সেজদাও প্রলম্বিত হচ্ছে।
শেষে তিনি যখন উঠার মনস্থ করলেন; তখনই জিব্রাইল (আঃ) হাজির হলেন। বললেন, রাসূল (সাঃ) আপনি সেজদা থেকে মাথা উঠাবেন না। দৃশ্যটি আল্লাহর খুব পছন্দ হয়েছে। আল্লাহ্ আরশে আজীমে ফেরস্তারাসহ দৃশ্যটা দেখছেন।
সুবহানআল্লাহ; আল্লাহুয়াকবার;
Collected

Tuesday, 3 October 2017

ছোট্ট এক ছেলে ছিলো প্রচন্ড রাগী

ছোট্ট এক ছেলে ছিলো প্রচন্ড রাগী। তাই দেখে বাবা তাকে একটা পেরেক ভর্তি ব্যাগ দিল এবং বললো যে, যতবার তুমি রেগে যাবে ততবার একটা করে পেরেক আমাদের বাগানের কাঠের বেড়াতে লাগিয়ে আসবে। প্রথমদিনেই ছেলেটিকে বাগানে গিয়ে ৩৭ টি পেরেক মারতে হলো। ....
পরের কয়েক সপ্তাহে ছেলেটি তার রাগকে কিছুটা নিয়ন্ত্রনে আনতে পারে তাই প্রতিদিন কাঠে নতুন পেরেকের সংখ্যাও ধীরে ধীরে কমে এলো। সে বুঝতে পারলো হাতুড়ী দিয়ে কাঠ বেড়ায় পেরেক বসানোর চেয়ে তার রাগকে নিয়ন্ত্রন করা অনেক বেশি সহজ।
শেষ পর্যন্ত সেই দিনটি এলো যেদিন তাকে একটি পেরেকও মারতে হলো না। সে তার বাবাকে এই কথা জানালো। তারা বাবা তাকে বললো এখন তুমি যেসব দিনে তোমার রাগকে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রন করতে পারবে....
সেসব দিনে একটি একটি করে পেরেক খুলে ফেলো। অনেক দিন চলে গেল এবং ছেলেটি একদিন তার বাবাকে জানালো যে সব পেরেকই সে খুলে ফেলতে সক্ষম হয়েছে।তার বাবা এবার তাকে নিয়ে বাগানে গেল এবং কাঠের বেড়াটি দেখিয়ে বললো..
'তুমি খুব ভাল ভাবে তোমার কাজ সম্পন্ন করেছো,এখন তুমি তোমার রাগকে নিয়ন্ত্রন করতে পারো কিন্তু দেখো, প্রতিটা কাঠে পেরেকের গর্ত গুলো এখনো রয়ে গিয়েছে। কাঠের বেড়াটি কখনো আগের অবস্থায় ফিরে যাবে না।...
যখন তুমি কাউকে রেগে গিয়ে কিছু বলো তখন তার মনে ঠিক এমন একটা আচড় পরে যায়। তাই নিজের রাগতে নিয়ন্ত্রন করতে শেখো।মানসিক ক্ষত অনেক সময় শারীরিক ক্ষতের চেয়েও অনেক বেশি ভয়ংকর......
সংগৃহীত

Monday, 2 October 2017

এক স্বর্ণকারের মৃত্যুর পর তার পরিবারটা বেশ সংকটে পড়ে গেল

এক স্বর্ণকারের মৃত্যুর পর তার পরিবারটা বেশ সংকটে পড়ে গেল। খাদ্য-বস্ত্রে দেখা দিল চরম অভাব।
স্বর্ণকারের বিধবা স্ত্রী তার বড় ছেলেকে একটা হীরের হার দিয়ে বললো--এটা তোর কাকুর দোকানে নিয়ে যা, বলবি যে এটা বেচে কিছু টাকা দিতে।
ছেলেটা হারটি নিয়ে কাকুর কাছে গেল।
কাকু হারটা ভালো করে পরীক্ষা করে বললো- বেটা, তোমার মাকে গিয়ে বলবে যে এখন বাজার খুবই মন্দা, কয়েকদিন পর বিক্রি করলে ভাল দাম পাওয়া যাবে। কাকু কিছু টাকা ছেলেটিকে দিয়ে বললেন--আপাতত এটা নিয়ে যাও আর কাল থেকে তুমি প্রতিদিন দোকানে আসবে আমি কোন ১দিন ভাল খদ্দোর পেলেই যেন তুমি দৌড়ে হার নিয়ে আসতে পার তাই সারাদিন থাকবে।
পরের দিন থেকে ছেলেটা রোজ দোকানে যেতে লাগলো।সময়ের সাথে সাথে সেখানে সোনা-রুপা-হীরে কাজ শিখতে আরম্ভ করলো।
ভাল শিক্ষার ফলে অল্প দিনেই খুব নামি জহুরত বনে গেল। দূর দূরান্ত থেকে লোক তার কাছে সোনা দানা বানাতে ও পরীক্ষা করাতে আসত। খুবই প্রসংশীত হচ্ছিল তার কাজ।
একদিন ছেলেটির কাকু বললো-- তোমার মাকে গিয়ে বলবে যে এখন বাজারের অবস্থা বেশ ভালো, তাই সেই হারটা যেন তোমার হাতে দিয়ে দেন। এখন এটা বিক্রি করলে ভালো দাম পাওয়া যাবে।
ছেলেটি ঘরে গিয়ে মায়ের কাছ থেকে হারটি নিয়ে পরীক্ষা করে দেখলো যে এটা একটা নকল হীরের হার। তাই সে হারটা আর কাকুর কাছে নিয়ে যায় নি।
কাকু জিজ্ঞেস করলো-- হারটি আনো নি ?
ছেলেটি বললো-- না কাকু, পরীক্ষা করে দেখলাম এটা একটা নকল হার।
তখন কাকু বললো- তুমি যেদিন আমার কাছে হারটি প্রথম নিয়ে এসেছিলে সেদিন আমি দেখেই বুঝে নিয়েছিলাম যে এটা নকল, কিন্তু তখন যদি আমি তোমাকে এই কথাটা বলে দিতাম, তাহলে তোমরা হয়তো ভাবতে যে আজ আমাদের মন্দ সময় বলেই কাকু আমাদের আসল জিনিষকে নকল বলছে। আজ যখন এ ব্যাপারে তোমার পুরো জ্ঞান হয়ে গেছে, তখন তুমি নিজেই বলছো এটা নকল হার।
এই দুনিয়াতে প্রকৃত জ্ঞান ছাড়া তুমি যা কিছু দেখছো...যা কিছু ভাবছো সবটাই এই হারের মতই নকল, মিথ্যে। জ্ঞান ছাড়া কোন জিনিসের বিচার সম্ভব নয়। আর এই ভ্রমের শিকার হয়েই অনেক সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়। আমি সেই সম্পর্কটা নষ্ট হোক তা চাইনা
Collected.............

বন্ধু বুয়েটে পড়া অবস্থায় ইন্ট্রারে পড়া এক মেয়েকে টিউশনি করাতো

বন্ধু বুয়েটে পড়া অবস্থায় ইন্ট্রারে পড়া এক মেয়েকে টিউশনি করাতো। বন্ধু দেখতে হ্যান্ডস্যাম। পড়তো কম্পিউটার সাইন্সে। ছাত্রী তখন তার রঙীন বয়সটা পার করতেছে। সো যা হবার তাই হলো।
......
সে ইনিয়ে বিনিয়ে বন্ধুকে প্রেম প্রস্তাব দিয়ে বসলো। বন্ধু এই প্রস্তাবের জবাবে শুধু একটা কথায় বলেছিলো "তুমি সবে মাত্র ইন্ট্রারে পড়। কম্পিউটারটা ঠিক মত চালাতে পারো না। তবুও তোমার একটা ল্যাটেস্ট ল্যাপটপ আর একটা ডেক্সটপ আছে। দুইটা সেমিস্টার পার হয়ে গেল। বাবাকে বলেছি কম্পিউটার সাইন্সে পড়ি। একটা কম্পিউটার দরকার। বাবা দিতে পারেন নাই। বাকিটা তুমি বুঝে নিও। কাল থেকে আর পড়াতে আসবো না।" এরপর সেই ছাত্রীর কি হয়েছিলো জানি না। তবে বন্ধু আজ বেশ সফল একজন মানুষ।
......
সেদিন এক বন্ধুর হাতের রান্না খেলাম। খুব সুন্দর রান্না করে। মাংসতে এত ঝাল দিছে যে আমার চোখ দিয়ে পানি বের হচ্ছিলো। বন্ধুকে বললাম "এত ঝাল খাস কেন? বন্ধু বলল "ছোট বেলায় খুব অভাব ছিলো। প্রায়ই শুধু মরিচ দিয়ে ভাত খেতাম। সেই থেকে অভ্যাস হয়ে গেছে"। বন্ধুর জবাবটা এমনই ছিলো।
......
আমি চমকে তাকালাম। নিজের পরিবারের অভাব আর না পাওয়ার গল্প গুলো নিয়ে এত বার এত কিছু লিখেছি যে আর লিখতে ইচ্ছা করে না। আর বর্তমান জেনারেশনের বেশির ভাগই সব পেয়েছির দল (সবাই না)। সো তাদের কাছে এই কচকচানি বিরক্তিকর মনে হতেই পারে।
.......
তবে শুধু এইটুকু বলি "জীবনটাতে টানপোড়ন, স্ট্রাগল, সংগ্রাম এই জিনিস গুলো বড্ড প্রয়োজন। না আমি কারো সামর্থ্য থাকাকে দোষ দিচ্ছি না। সেটা অবশ্যই শুকরিয়া করার বিষয়।
.......
তবে কেউ কেউ চাহিবা মাত্র সবপেয়ে জীবনটাকে বিভিন্ন রং এর সাথে গুলিয়ে ফেলে। তাদের কাছে জীবন মানে একটা সেলফি, চেকইন, ডিজে পার্টি, হ্যাং আউট, বারবিকিউ, কিংবা ভার্চুয়াল কিছু অনূভুতি। তারা কি জানে "বাস্তবটা অত সোজা না। যেখানে একটা স্ট্যাটাস কিংবা দুইটা সেলফি দিয়ে সব কিছু আপডেট রাখা যায় না।
......
বাস্তব জীবনটাকে আপডেট রাখতে হলে ছুটতে হয়। ছুটতে গিয়ে হোঁচট খেতে হয়। হোঁচট খেয়ে ব্যাথা পেলে চোখে জল আসে। সেই চোখের জল মুছে উঠে দাঁড়িয়ে আবার ছুটতে হয়। নইলে জীবন তোমাকে খরচের খাতায় ফেলে দিবে। তুমি হারিয়ে যাবে সব বেহিসেবের আবর্জনায়।
সংগৃহিত

লিবিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মুয়াম্মর গাদ্দাফি তার শাসনামলে দেশের নাগরিকদের যেসকল সুবিধা দিতেন

১/দেশের প্রত্যেক নাগরিক বিদ্যুতের সুবিধা পেতো কিন্তু কাওকে বিদ্যুতের বিল দিতে হত না।
২/লিবিয়ার সকল ব্যাংক রাষ্ট্র মালিকানাধীন।দেশের নাগরিকরা সেসকল ব্যাংক থেকে প্রয়োজনীয় ঋণ নিতে পারতো কিন্তু এতে করে ব্যাংকে কোন সুদ দিতে হত না।
৩/গাদ্দাফি বিশ্বাস করতেন দেশের প্রত্যেক নাগরিকের বাড়ি পাবার অধিকার রয়েছে।তাই তিনি ঘোষণা দেন দেশের প্রত্যেক নাগরিকের জন্যে আবাসনের ব্যবস্থা না হওয়া অবদি তিনি নিজে এবং তার বাবা মার জন্যে কোন সরকারী বাড়ি বরাদ্ধ করা হবে না।গাদ্দাফির বাবা একটি তাবুতে মারা যান।গাদ্দাফি তার মা এবং স্ত্রীকে নিয়ে একটি তাবুতে বসবাস করতেন।
৪/লিবিয়ায় প্রত্যেক নব দম্পতিকে সরকারের পক্ষ থেকে ৫০ হাজার ডলার দেয়া হত,যাতে করে তারা নতুন জীবন সুন্দর করে সাজাতে পারে।
৫/একেবারে বিনামূল্যে শিক্ষার ব্যবস্থা ছিল প্রত্যেক নাগরিকের জন্যে।গাদ্দাফি ক্ষমতায় যাওয়ার আগে শিক্ষিতের হার ছিল ২৫% আর তার শাসনামলে তা বেড়ে দাড়ায় ৮৩% এ।
৬/প্রত্যেক নাগরিককে বিনামূল্যে সকল ধরণের চিকিৎসা সেবা দেয়া হত।
৭/কেও কৃষি খামার করতে চাইলে তাকে সরকার থেকে জমি,বীজ,সার সহ সকল প্রয়োজনীয় উপকরণ বিনামূল্যে দেয়া হত।
৮/কোন কারণে লিবিয়ার কোন নাগরিককে চিকিৎসার জন্যে কিংবা উচ্চ শিক্ষার জন্যে বিদেশে যেতে হলে সকল খরচ সরকার বহন করতো।
৯/লিবিয়ার মুল আয়ের উৎস হচ্ছে খণিজ তেল রপ্তানি।এই তেল রপ্তানি থেকে যা আয় হত তার একটি নির্দিষ্ট অংশ প্রত্যেক নাগরিকের ব্যাংক একাউন্টে দিতে দেয়া হত।
১০/সন্তান জন্ম দিলে প্রত্যেক নারীকে ৫ হাজার ডলার উপহার দেয়া হত।
...........................ইত্যাদি
গাদ্দাফি ছিলেন ইসলামের জন্যে নিবেদিত প্রাণ।
ইসলামের বীর মরুর সিংহ নামে খ্যাত উমর মুখতার (রহঃ) এর যোগ্য উত্তরসূরি ছিলেন গাদ্দাফি।পশ্চিমা শক্তির জন্যে তিনি ছিলেন ত্রাস।তিনি তার সময়ে লিবিয়ার সেনাবাহিনীকে বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী সেনাবাহিনী হিসেবে গড়ে তুলেন।
ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার জন্যে গাদ্দাফি ছিলেন সব সময় আপোসহীন।আফ্রিকার মুসলিম দেশগুলোর অধিকার আদায়ে তিনি ছিলেন স্বোচ্চার।গাদ্দাফি ছিলেন অন্যন্ত দেশ প্রেমিক,মুসলমানদের জন্যে নিবেদিত প্রাণ,সাহসী,স্পষ্টভাষী একজন মানুষ।পশ্চিমা শক্তির রোষানলে পরে তাকে নির্মম ভাবে শাহাদত বরণ করতে হয়।আর তার পরের অবস্থা আপ্নারা সকলেই দেখতে পাচ্ছেন।
Collected

Friday, 29 September 2017

বিজ্ঞানীরা ব্যর্থ যেখানে

 => স্বপ্ন না দেখার যন্ত্র আবিস্কার করতে পারেনি।
=> বর্তমানে দাঁড়িয়ে মুহুর্তের মধ্যে কল্পজগতে শত বৎসর পাড়ি দেয়া ঠেকাতে পারেনি।
=> ভুল শোধরানোর যন্ত্র আবিস্কার করতে পারেনি।
=> মানুষের মন পড়ার উপায় আবিস্কার করতে পারেনি।
=> মৃত্যু থামানোর পথ আবিস্কার করতে পারেনি।
=> সময়কে পিছিয়ে নেয়ার কোন পদ্ধতি আবিস্কার করতে পারেনি।
=> বাতাস দেখার যন্ত্র আবিস্কার করতে পারেনি।
কারন এগুলো করনেওয়ালা জাত একমাত্র "আল্লাহ"
কুরআন বিজ্ঞানকে জন্ম দিয়েছে.....
বিজ্ঞান কুরআনের নিছক একটা অংশ মাত্র, এর বেশী কিছু নয়....
Collected

Wednesday, 27 September 2017

মেয়েদের সুন্দর কিছু ইসলামিক নাম এবং এর অর্থ

রায়হানা = সুগন্ধি ফুল।
রাফিয়া = উন্নত।
পারভীন = দিপ্তিময় তারা।
নূসরাত = সাহায্য।
নিশাত = আনন্দ।
নাজীফা = পবিত্র।
নাইমাহ = সুখি জীবনযাপনকারীনী।
নাফিসা = মূল্যবান।
মুরশীদা = পথর্শিকা।
মাসূমা = নিষ্পাপ।
মাসূদা = সৌভাগ্যবতী।
মাহফুজা = নিরাপদ
আসিয়া অর্থ শান্তি স্থাপনকারী।
আশরাফী অর্থ সম্মানিত।আমিনা অর্থ নিরাপদ।
আনিসা অর্থ কুমারী।
°আনিফা অর্থ রূপসী।
°আনওয়ার অর্থ জ্যোতিকাল।
°আরিফা অর্থ প্রবল বাতাস।
°আয়িশা অর্থ জীবন যাপন কারিণয়
€আমীনা অর্থ » আমানত রক্ষাকারণী।
€আসমা অর্থ » নামসমূহ।
€আফরোজা অর্থ » জ্ঞানী।
€আয়মান অর্থ » শুভ।
€আমীরাতুন নিসা অর্থ » নারীজাতির নেত্রী।
€আকলিমা অর্থ » দেশ।
€ইসমাত আফিয়া অর্থ » পূর্ণবতী।
€কামরুন অর্থ » ভাগ্য
রীমা অর্থ => সাদা হরিণ।
সুফিয়া অর্থ => আধ্যাত্মিক সাধনাকারী।
সায়িমা অর্থ => রোজাদার।
শাহানা অর্থ => রাজকুমারী।
শাকিলা অর্থ => রূপবর্তী।
শাফিয়া অর্থ => মধ্যস্থতাকারিনী।
সাজেদা অর্থ => ধার্মিক।
সাদীয়া অর্থ => সৌভাগ্যবর্তী!
সালমা অর্থ => প্রশন্ত।
শিরিন অর্থ => আনন্দকর।
তাসনিয়া = প্রসংসা।
তাসনিম অর্থ => বেহশতী ঝর্ণা।
তানজীম অর্থ > সুবিনাসত
মাহফুজা অর্থ > নিরাপদ
আয়েশা অর্থ > সমৃদ্ধিশালী
ফারহানা অর্থ > প্রান চঞ্চল
ফরিদা অর্থ > অনুপমা
ফারিহা অর্থ >সুখী
হুমায়রা অর্থ= রূপসী
লাবীবা অর্থ= জ্ঞানী
ফারিহা অর্থ= সুখী
ফাহমিদা অর্থ= বুদ্ধিমতী
মাহবুবা অর্থ= প্রেমপাত্রী
নার্গিস অর্থ= ফুলের নাম
তামান্না অর্থ= ইচ্ছা-আখাংকা
শিরিন অর্থ= আনন্দকর
আফিফা অর্থ= সাধ্বী
তাহমিনা অর্থ= মূল্যবান
সাদিয়া অর্থ= সৌভাগ্যবতী।
জাবিরা-রাজিহওয়া।
জাদিদাহ-নতুন।
জাদওয়াহ-উপহার।
জাহান-পৃথিবী।
জালসান-বাগান।
জমিমা-ভাগ্য।
জামিলা-সুন্দরী।
আফিয়া»অর্থ»»পূণ্যবর্তী।
হামিদা»অর্থ»» প্রশংসাকারিনী।
ফারজানা»অর্থ»» বিদুষী।
ফাহমিদা»অর্থ»» বুদ্ধিমতী।
বিলকিস»অর্থ»» রানী।
আমিনা»অর্থ»» বিশ্বাসী।
আয়েশা»অর্থ»» সমৃদ্ধিশালী।
আনজুম»অর্থ»» তারা।
আনতারা»অর্থ»» বীরাঈনা।
আকিলা»অর্থ»» বুদ্ধিমতি।
মাজেদা»অর্থ»» মহতি।
সাদীয়া - সৌভাগ্যবতী
সাগরিকা - তরঙ্গ
সহেলী - বান্ধবী
সাহিরা - পর্বত
সাইদা - নদী
সায়িমা - রোজাদার
সাজেদা - ধার্মিক
সালীমা - সুস্থ
সালমা - প্রশান্ত
সালমা আফিয়া - প্রশান্ত পূণ্যবতী
সালমা আনিকা - প্রশান্ত সুন্দরী
সালমা আনজুম - প্রশান্ত তারা
সালমা ফারিহা - প্রশান্ত সুখী
সালমা ফাওজিয়া - প্রশান্ত সফল
সালমা মাহফুজা - প্রশান্ত নিরাপদ
:- তাহিয়া অর্থ অভিবাদন,
:- ফারযানা অর্থ কৌশলী,
:- ফিরোজা অর্থ উজ্জ্বল,
:- শামীমা অর্থ খুশবু,
:- আফিফা অর্থ সতী নারী,
:- দিলরুবা অর্থ প্রিয়তমা,
:- ফারহানা অর্থ প্রফুল্লতা।
:-নওশীন অর্থ মিষ্টি,
:-দিলরুবা অর্থ প্রেমিকা,
:-নিশাত অর্থ আনন্দ,
:-নুসরাত অর্থ সাহায্য,
:-তূবা অর্থ সুসংবাদ,
:-জুলফা অর্থ বাগান,
:-যীনাত অর্থ সৌন্দর্য,
:-ঈশাত অর্থ বসবাস,
:-রওশন অর্থ উজ্জ্বল,
:-জেবা অর্থ যথার্থ।
.
শিরিন >অর্থ> আনন্দকর।
শাবানা >অর্থ> রাত্রিমধ্যে।
তাসনিয়া >অর্থ>প্রশংসা।
তাহমিনা >অর্থ> মূল্যবান।
আতিকা >অর্থ> সুন্দরী।
রহিমা >অর্থ> দয়ালু।
আসমা >অর্থ> অতুলনীয়।
ফরিদা >অর্থ> অনুপমা।
আনিকা >অর্থ> সুন্দরী।
আয়েশা >অর্থ> সমৃদ্ধিশীল।
আমিনা >অর্থ> বিশ্বাসী।
দীনা >অর্থ> বিশ্বাসী।
হাসিনা >অর্থ> সুন্দরী।
লায়লা >অর্থ> শ্যামলা।
মুমতাজ >অর্থ> মনোনীত।
মায়মুনা >অর্থ> ভাগ্যবতী।
রশীদা >অর্থ> বিদূষী।
রামিসা >অর্থ> নিরাপদ।
সামিয়া »অর্থ» রোজাদার।
রওশান »অর্থ» উজ্জ্বল।
রাওনাফ »অর্থ» সৌন্দর্য।
শাহানা »অর্থ» রাজকুমারী।
রোশনী »অর্থ» আলো।
রুমালী »অর্থ» কবুতর।
রীমা »অর্থ» সাদা হরিণ।
রুম্মন »অর্থ» ডালিম।
সাবিহা »অর্থ» রূপসী।
শাকিলা »অর্থ» রূপবতী।
শাফিয়া »অর্থ» মধ্যস্থতাকারিণী।
সাকেরা »অর্থ»কৃতজ্ঞ।
সাজেদা »অর্থ» ধার্মিক।
সাইদা »অর্থ» নদী।রা।
নূসরাত = সাহায্য।
নিশাত = আনন্দ।
নাজীফা = পবিত্র।
নাইমাহ = সুখি জীবনযাপনকারীনী।
নাফিসা = মূল্যবান।
মুরশীদা = পথর্শিকা।
মাসূমা = নিষ্পাপ।
মাসূদা = সৌভাগ্যবতী।
মাহফুজা = নিরাপদ
°আসিয়া অর্থ শান্তি স্থাপনকারী।
°আশরাফী অর্থ সম্মানিত।
°আমিনা অর্থ নিরাপদ।
°আনিসা অর্থ কুমারী।
°আনিফা অর্থ রূপসী।
°আনওয়ার অর্থ জ্যোতিকাল।
°আরিফা অর্থ প্রবল বাতাস।
°আয়িশা অর্থ জীবন যাপন কারিণয়
€আমীনা অর্থ » আমানত রক্ষাকারণী।
€আসমা অর্থ » নামসমূহ।
€আফরোজা অর্থ » জ্ঞানী।
€আয়মান অর্থ » শুভ।
€আমীরাতুন নিসা অর্থ » নারীজাতির নেত্রী।
€আকলিমা অর্থ » দেশ।
€ইসমাত আফিয়া অর্থ » পূর্ণবতী।
€কামরুন অর্থ » ভাগ্য
রীমা অর্থ => সাদা হরিণ।
সুফিয়া অর্থ => আধ্যাত্মিক সাধনাকারী।
সায়িমা অর্থ => রোজাদার।
শাহানা অর্থ => রাজকুমারী।
শাকিলা অর্থ => রূপবর্তী।
শাফিয়া অর্থ => মধ্যস্থতাকারিনী।
সাজেদা অর্থ => ধার্মিক।
সাদীয়া অর্থ => সৌভাগ্যবর্তী!
সালমা অর্থ => প্রশন্ত।
শিরিন অর্থ => আনন্দকর।
তাসনিয়া প্রসংসা।
তাসনিম অর্থ => বেহশতী ঝর্ণা।
তানজীম অর্থ > সুবিনাসত
মাহফুজা অর্থ > নিরাপদ
আয়েশা অর্থ > সমৃদ্ধিশালী
ফারহানা অর্থ > প্রান চঞ্চল
ফরিদা অর্থ > অনুপমা
ফারিহা অর্থ >সুখী
হুমায়রা অর্থ= রূপসী
লাবীবা অর্থ= জ্ঞানী
ফারিহা অর্থ= সুখী
ফাহমিদা অর্থ= বুদ্ধিমতী
মাহবুবা অর্থ= প্রেমপাত্রী
নার্গিস অর্থ= ফুলের নাম
তামান্না অর্থ= ইচ্ছা-আখাংকা
শিরিন অর্থ= আনন্দকর
আফিফা অর্থ= সাধ্বী
তাহমিনা অর্থ= মূল্যবান
সাদিয়া অর্থ= সৌভাগ্যবতী।
জাবিরা-রাজিহওয়া।
জাদিদাহ-নতুন।
জাদওয়াহ-উপহার।
জাহান-পৃথিবী।
জালসান-বাগান।
জমিমা-ভাগ্য।
জামিলা-সুন্দরী।
আফিয়া»অর্থ»»পূণ্যবর্তী।
হামিদা»অর্থ»» প্রশংসাকারিনী।
ফারজানা»অর্থ»» বিদুষী।
ফাহমিদা»অর্থ»» বুদ্ধিমতী।
বিলকিস»অর্থ»» রানী।
আমিনা»অর্থ»» বিশ্বাসী।
আয়েশা»অর্থ»» সমৃদ্ধিশালী।
আনজুম»অর্থ»» তারা।
আনতারা»অর্থ»» বীরাঈনা।
আকিলা»অর্থ»» বুদ্ধিমতি।
মাজেদা»অর্থ»» মহতি।
সাদীয়া - সৌভাগ্যবতী
সাগরিকা - তরঙ্গ
সহেলী - বান্ধবী
সাহিরা - পর্বত
সাইদা - নদী
সায়িমা - রোজাদার


Collected

Tuesday, 26 September 2017

হতাশ নয় আত্মবিশ্বাসী হউন

আমি একটি মেয়ের কথা জানি, যে অন্যর বাড়িতে কাজ করতো, কাগজের ব্যাগ বানিয়ে দোকানে বিক্রি করতো, তারপর সেই টাকায় পড়াশুনা করেছে। 
...... আজ সে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সদস্য।


আমি এক শত কুটি টাকার মালিক শিল্পপতি কে খুব কাছ থেকে ছিনি। যিনি খুব কষ্ট করে লিখা পরা করে বড় হয়েছে তার বাবার কুড়ে ঘর ছিল বর্ষাকালে চাল দিয়ে বৃষ্টি পড়ত। রাতে যখন বৃষ্টি পড়ত তখন ঘুম থেকে উঠে স্কুলের বইগুলো কুলে নিয়ে বসে থাকত। বই গুলো বিজে না যায়, সে আজ দানবীর নামে খ্যাত করিমগঞ্জের এরশাদ উদ্দিন। 


৯ বছর বয়সের এক ছেলে। খাবারের অভাবে মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলো, তারপর পাড়ার এক ভাইয়ের সহযোগীতায় পায় দোকানে রুটি বানানোর কাজ। তারপর পড়াশুনা। সেই ছেলেটির নাম আজ সবার মুখে মুখে।
......কাজী নজরুল ইসলাম।


আরেক বালকের কথা জানি,
বাড়ি জামালপুর। খড়ের ঘরে থাকতো আর ছাগল ছরাতো। ছাগলের দুধ বিক্রি করে বিড়ি-সিগারেটের দোকান করতো। জামা পরে সে একদিনও স্কুলে যেতে পারেনি। বাজারে বাজারে গামছা বিছিয়ে টাকা (১৫০৳) তুলে কলেজে ভর্তি হয়েছিলো। সেই ছেলেটিই হয়েছিলো বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর।
- নাম, আতিউর রহমান।


আরেক ব্যাক্তি আছে, যে দুই দিনে এক বেলা খেতে পেতো। এতটাই দরিদ্র ছিলো যে বই খাতা কেনার সামর্থ্য ছিলো না তার। কাঠুরিয়ার কাজ করতো, তারপর পড়াশুনা। 


- সেই ব্যাক্তিটিই হয়েছিলো আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। নাম- আব্রাহাম লিংকন।
আরেক যুবকের নাম জানি,
মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম। ছোটবেলায় স্কুল পালিয়েছে একের অধিকবার। রাস্তায় যাযাবরের মত ঘুরতো। বন্ধুর সহায়তায় শুরু করে নিজের মেধার বিকাশ।


- সেই যুবকটিই আজকের বিল গেটস।
আরেকজন, বাবার সাথে মুদি দোকান করতো। পরিবারের এতই অভাব ছিলো যে- স্কুল নাগাত পড়েই তাকে থেমে যেতে হয়েছিলো। সেই ব্যাক্তিই একসময় হয়ে উঠে বিরাট বিপ্লবী নেতা। 

- আর কেউ নয়, চীনের প্রতিষ্ঠাতা মাও সেতুং।

পেশায় ছিলো নাপিত। পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে কিংবা সেলুনে চুল কাটতো। সে-ই হয়েছিলো কৃষ্ণ-আফ্রিকার মুক্তি আন্দোলনের হোতা। 

- সে হচ্ছে, স্বাধীন নামবিয়ার রাষ্ট্রপিতা ও প্রেসিডেন্ট শ্যাম নাজোমা।

অভাবের তাড়ানায় কুলিগিরি করতো। একদিন বাসের কন্ডাক্টরের কাজের জন্য গেলে তাকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়া হয়। যে যুবকটি অংকে পারদর্শী নয় বলে বাসের কন্ডাক্টর হতে পারেনি, পরবর্তীতে সে-ই হয় ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী।
নাম- জন মেজর।


আরেক ছেলের বাবা-মা এতই গরিব ছিলো যে, তার জন্মের পর নাম রেজিস্ট্রি করতেই দু’দিন দেরি হয়। ভাবতে পারেন?
সে-ই আজকের ফুটবল কিংবদন্তী! নাম- রোনাল্ডো।


বাবা ছিলো জেলে। বাবা মাছ ধরতো আর সে সেই মাছ বিক্রি করতো। সেই জেলের ছেলেই শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট সুপারস্টার জয়সুরিয়া।


জিরো থেকে হিরো হওয়া উপরের উদাহরণ গুলো দেওয়ার কিছু কারন আছে।
এদেরও অনেক কষ্ট ছিলো, জীবনের শুরুতেই হতাশ হয়েছিলো বার বার।
কিন্তু, হাল ছেড়ে দেয়নি.....ডিপ্রেশনকেও স্থান দেয়নি নিজের মাঝে। করেনি সুইসাইড।


অথচ আমরা আজকাল আইফোন কিনতে না পেরে সুইসাইড করি। প্রেমে ব্যার্থ হয়ে ডিপ্রেশনে পড়ে ড্রাগস নেই, তারপর সুইসাইড!
কিন্তু কেন রে ভাই!!????


আপনিও যে দ্বিতীয় কোন আতিউর রহমান কিংবা আব্রাহাম লিংকন হবেননা, তার-ও বা কি নিশ্চায়তা আছে????


কেন লাইফে ডিপ্রেশনকে জায়গা দিবেন!??
Be strong!


ফুল দিও, কলি দিও, কাঁটা দিও না,
নিজের উপর কনফিডেন্স রাইখো, ডিপ্রেশড হইয়ো না....


Collected

একজন শিক্ষক তাঁর ক্লাসরুমে পড়াচ্ছেন

একজন শিক্ষক তাঁর ক্লাসরুমে পড়াচ্ছেন। তিনি একটা খালি বয়াম টেবিলের ওপরে রাখলেন। তারপর তার ভেতরে ঢোকালেন কতগুলো বড় পাথরের টুকরা। বয়ামটা ভরে গেল। তিনি বললেন, ‘ছাত্ররা, দেখো তো, আর কোনো পাথরখণ্ড ঢুকবে কি না?’
‘না, স্যার।’
‘তাহলে বয়ামটা ভরে গেছে, কী বলো?’
‘জি, স্যার।’
এবার শিক্ষক কতগুলো ছোট নুড়ি বয়ামটাতে ঢালতে লাগলেন। নুড়িগুলো পাথরের ফাঁকে ফাঁকে ঢুকে গেল। তিনি বললেন, ‘এবার ভরেছে। কী বলো?’
‘জি, স্যার।’
তিনি এবার বালু ঢালতে লাগলেন। পাথর আর নুড়ির ফাঁকে ফাঁকে বালু ঢুকতে লাগল এবং বয়ামটাকে পূর্ণ করে তুলল। শিক্ষক বললেন, ‘আচ্ছা, এবার আমরা পুরো ব্যাপারটাকে উল্টো করে করি। প্রথমেই আমরা যদি বালু দিয়ে বয়ামটা পূর্ণ করে ফেলি, তাহলে কী হবে?’ তিনি বালু দিয়ে পাত্রটা পূর্ণ করলেন। তারপর আর নুড়ি কিংবা পাথর ঢোকানোর জায়গা রইল না।
তিনি বললেন, ‘এ থেকে আমরা খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু জিনিস শিখব। এই যে পাত্রটা দেখছ, এটা হলো আমাদের জীবন। এই যে বড় বড় পাথরখণ্ড, এগুলো হলো আমাদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। আমাদের পরিবার, বাবা-মা, ভাইবোন, স্বামী-স্ত্রী, সন্তান, আমাদের স্বাস্থ্য, আমাদের শিক্ষা। আর নুড়িগুলো হলো আমাদের বিষয়সম্পত্তি, আমাদের গাড়ি-বাড়ি, আমাদের টেলিভিশন, আমাদের টেলিফোন, আমাদের বাগান। আর বালু হলো বাকি সবকিছু, আমাদের জীবনে আর যা যা করতে হয়। প্রথমেই যদি আমরা ছোট ছোট জিনিস দিয়ে জীবনটাকে ভরে ফেলি, তাহলে বড় কাজগুলো করা হবে না। কাজেই সব সময় পরিবারকে সময় দেবে, বাবা-মায়ের যত্ন নেবে, নিজের স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখবে, লেখাপড়া করবে। তারপর গাড়ি-বাড়ি, কম্পিউটার-টেলিফোন এসবের দিকে নজর দেবে।’
এক ছেলে দাঁড়িয়ে বলল, ‘স্যার, বয়ামটা এখনো ভরেনি। আপনি যদি এর মধ্যে পানি ঢালেন, পানি ভরবে।’
ঠিক তাই। তিনি পাথরখণ্ড, নুড়ি আর বালুভরা পাত্রটিতে এক কাপ কফি ঢাললেন। কফিটা পাত্রে ঢুকে গেল।
‘এই কফিটা হলো আনন্দ। মানুষের জন্য কিছু করা। সেবার ব্রত। তুমি যা-ই করো না কেন, জীবন আনন্দময়। মানুষের জন্য, মানবতার জন্য সর্বদাই কিছু না কিছু করার সময় তুমি বের করতে পারবে। মানুষের উপকারে আসতে পারবে। তাতেও তুমি অনেক আনন্দ পাবে। জীবনটাকে যত আঁটোসাঁটো মনে হোক না কেন, যতই তুমি ব্যস্ত থাকো না কেন, জীবনকে উপভোগ করো। আর যেন সবচেয়ে ভালোভাবে জীবনটাকে আনন্দপূর্ণ করে তোলা যায়, অপরের মুখে হাসি ফোটানোর মাধ্যমে।
সংগৃহীত।

Wednesday, 20 September 2017

সুখি হতে চাইলে - ক্ষমা করতে শিখতে হবে।

 সুখি হতে চাইলে - ক্ষমা করতে শিখতে হবে।
 ধনী হতে চাইলে - পরিশ্রমী হতে হবে।
 ক্ষমা পেতে চাইলে - বিনয়ী হতে হবে।
 ব্যক্তিত্ববান হতে চাইলে - ঠাট্টা ছাড়তে হবে।
 জ্ঞানী হতে চাইলে - কম কথা বলতে হবে।
প্রিয়পাত্র হতে চাইলে - হাসতে শিখতে হবে।
সম্পদশালী হতে চাইলে-বেশীবেশী দান করতেহবে।
 মহৎ হতে চাইলে - নিজের ভুল খুজঁতে হবে।
 সফলতা চাইলে - ধৈর্য্য ধারন করতে হবে।
হীনমন্যতা এড়াতে চাইলে-প্রত্যাশাবর্জন করতেহবে।
পাপ থেকে বাঁচতে চাইলে - লোভ ত্যাগ করতে হবে।
স্রষ্টার কৃপা চাইলে - শোকর গুজার করতে হবে।
 অন্তরে শান্তি চাইলে - আপনজনদের সাথে ভাল ব্যবহার করতে হবে।"
সংগৃহীত..........

Monday, 18 September 2017

হযরত মুসা (আঃ) এর জামানার চমৎকার একটি ঘটনা

হযরত মুসা (আঃ) এর জামানার চমৎকার একটি
ঘটনা।
হযরত মুসা (আঃ) একবার আল্লাহ্
তায়া'লা কে জিজ্ঞেস করলেন,
হে আল্লাহ্!
জান্নাতে আমার সাথে কে থাকবে?
জবাবে বলা হলো,ওমুক কসাই !
জবাবে কসাইয়ের নাম শুনে মুসা (আঃ)
খুবই আশ্চর্য হলেন।
অনেক খোঁজ করার
পর মুসা (আঃ) তাকে বের করলেন।
দেখলেন, কসাই গোস্ত বিক্রিতে ব্যস্ত!
সবশেষে কসাই একটুকরো গোস্ত একটি
কাপড়ে মুড়িয়ে নিলেন।
অতঃপর বাড়ির দিকে রওয়ানা হলেন।
মুসা (আঃ) তাঁর সম্পর্কে আরো জানার জন্যে
অনুমতি নিয়ে পিছুপিছু তাঁর বাড়ি গেলেন।
কসাই বাড়ি পৌঁছে গোস্ত রান্না করলেন।
অতপর রুটি বানিয়ে তা গোস্তের ঝোলে
মেখে নরম করলেন।
তারপর ঘরের ভিতরের কামরায় প্রবেশ
করে শয়নরত এক বৃদ্ধাকে উঠিয়ে বসালেন ।
তারপর তার মুখে টুকরো টুকরো রুটি পুরে
দিতে লাগলেন।
খাওয়ার পর বৃদ্ধা কি যেন কানেকানে বললেন।
অমনি কসাই মুচকি হাসলেন।
দূর থেকে মুসা (আঃ) সব-ই দেখছিলেন।
কিন্তু, কিছুই বুঝলেন না।
মুসা (আঃ)বৃদ্ধার পরিচয় এবং মুচকি হাসার
বিষয়টি কসাইকে জিজ্ঞেস করলেন।
কসাই বললেন, ওনি আমার মা
আমি বাজার থেকে আসার পর সর্বপ্রথম
আমার মাকে রান্না করে খাওয়াই।
আর, মা খাওয়ার পর খুশি হয়ে আমার
কানের কাছে এসে আল্লাহ্ তায়া'লার কাছে
এই বলে দোআ করেন, "আল্লাহ্ তায়া'লা
তোমাকে বেহেস্ত দান করুক এবং মুসা (আঃ)
এর সাথে রাখুক"!
আমি এই দোআ শুনে এই ভেবে মুচকি হাসি
যে, কোথায় মুসা (আঃ)আর কোথায় আমি।
ইশ সে কত ভাগ্যবান সে কত দামি হয়ে গেল
মায়ের খেদমত করার জন্য।
ইয়া আল্লাহ আমাদের মন মানষিকতা, সেই
কসাইয়ের মত করে দাও,
আল্লাহ তায়া'লা যেন আমাদের মা বাবার খেদমত
করার তাওফীক দান করুন।
"আমিন"

Sunday, 17 September 2017

ঘটনার অন্য পিঠ

বাবা একদিন সকালে পত্রিকা পড়ছিলেন। তার ছোট্ট ছেলেটি বাবাকে বারবার এটাসেটা প্রশ্ন করে পড়ায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছিল। তখন বাবা তার ছেলেকে অন্য কাজে ব্যস্ত রাখতে তিনি বইয়ের একটি পৃষ্ঠা ছিঁড়লেন যার উপরে বিশ্বের মানচিত্র আকা ছিল। তিনি পৃষ্ঠাটিকে টুকরো টুকরো করে ছিড়লেন এবং ছেলেকে তার রুমে যেয়ে টুকরো অংশগুলোকে জোড়া লাগিয়ে আবারও মানচিত্র তৈরি করতে বললেন।
তিনি নিশ্চিত ছিলেন যে ছেলে পুরো দিন এইকাজে ব্যাস্ত থাকবে এবং পারবেনা। এবং তার বই পড়ায় আর বিরক্ত করবেনা। কিন্তু কিছু মুহূর্ত পরেই ছোট্ট ছেলেটি ছেড়া টুকরোগুলো জোড়া লাগিয়ে নিখুঁত মানচিত্র তৈরি করে নিয়ে এসে বাবকে দিল।
বাবা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন যে সে এত তাড়াতাড়ি কীভাবে এটি করল? ছেলেটি বলল, "ওহ .... বাবা, যে কাগজটি তুমি ছিড়েছিলে তার অন্যপিঠে একজন মানুষের মুখের ছবি ছিল। আমি কাগজের টুকরোগুলো উল্টাদিক করে সাজিয়ে মানুষের মুখটি নিখুত করে বানিয়েছি আবার, এর ফলে আপনা আপনিই পৃথিবীর মানচিত্রও ঠিক হয়ে গেছে। এই কথা বলে ছেলেটি পিতাকে বিস্মিত করে দৌড়ে চলে গেল।
সারমর্ম:
যাই ঘটুক না কেন আপনি কখনও হতাশ হবেন না। কারন প্রতিটি ঘটনা বা সমস্যারই অন্য দিক বা অন্য সমাধান সবসময় আছে। যখনই আপনি একটি চ্যালেঞ্জ বা একটি puzzling পরিস্থিতি সম্মুখীন হবেন, অন্য দিকে তাকান .... আপনি সমস্যা মোকাবেলা করার সহজ উপায় দেখতে পাবেন।
Collected.

Monday, 11 September 2017

যখন রক্ত সম্পর্কীয় কেউ আপনার সাথে প্রতারণা করবে ভেঙ্গে পড়বেন না

১) যখন রক্ত সম্পর্কীয় কেউ আপনার সাথে প্রতারণা করবে ভেঙ্গে পড়বেন না। মনে রাখবেন, হযরত ইউসুফ (আঃ) আপন ভাইদের দ্বারা প্রতারিত হয়েছিলেন।
.
২) যখন পিতামাতা আপনার প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াবেন, ভেঙ্গে পড়বেন না। মনে রাখবেন, হযরত ইব্রাহীম (আঃ) নিজ পিতার দ্বারাই আগুনে নিক্ষিপ্ত হয়েছিলেন।
.
৩) যখন ঘোর বিপদে পতিত হয়ে বের হয়ে আসার আর কোন উপয়ান্তর খুঁজে না পান, আশার শেষ আলোটুকুও দেখতে না পান, ভেঙ্গে পড়বেন না। মনে রাখবেন, হযরত ইউনুস (আঃ ) মাছের পেটের অন্ধকার প্রকোষ্ট থেকেও উদ্ধার হয়েছিলেন।
.
৪) যখন আপনার বিরুদ্ধে অপবাদ আরোপ করা হবে আর গুজবে দুনিয়া ছড়িয়ে যাবে, ভেঙ্গে পড়বেন না, এসবে কান দিবেন না। মনে রাখবেন, হযরত আয়শা সিদ্দিকা (রাঃ) এর বিরুদ্ধেও অপবাদ আরোপ করা হয়েছিল।
.
৫) যখন আপনি অসুস্থ হয়ে পড়বেন, ব্যাথায় কাঁতরাতে থাকবেন, ভেঙ্গে পড়বেন না। মনে রাখবেন, হযরত আইয়ুব (আঃ) আপনার চেয়েও হাজারগুন বেশী অসুস্থ ছিলেন।
.
৬) যখন আপনি নির্জন/একাকীত্বে ভোগেন, ভেঙ্গে পড়বেন না। স্মরন করুন, হযরত আদম (আঃ) কে, যাকে প্রথমে একাকী সঙ্গীবিহীন সৃষ্টি করা হয়েছিল।
.
৭) যখন কোন যুক্তি দিয়েই আপনি কোন একটি অবস্থার পেছনের কারণ খুঁজে পাবেন না, তখন কোন প্রশ্ন ব্যতীতই স্মরণ করুন হযরত নুহ (আঃ) এর কথা। যিনি অসময়ে কিস্তি/নৌকা তৈরি করেছিলেন।
.
৮) যখন আপনি পরিবার, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব, সর্বোপরি সারা দুনিয়ার দৃষ্টিতে কৌতুকের পাত্রে পরিণত হবেন, ভেঙ্গে পড়বেন না। স্মরণ করুন, আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ ﷺ এর কথা। যিনি তাঁর আপনজনের হাসি-তামাশার পাত্রে পরিণত হয়েছিলেন।
.
আল্লাহ তায়ালা তাঁর প্রেরিত সকল পয়গম্বরগণকেই পরীক্ষায় ফেলেছিলেন এবং তাঁদেরকে উদ্ধার করেছিলেন। এজন্য যে, যাতে করে দ্বীন পালনের ক্ষেত্রে পরবর্তী উন্মতেরা ধৈর্য্য ধারন করতে পারে, কষ্টসহিষ্ণু হতে পারে। ‘নিশ্চয় আল্লাহ ধৈর্য ধারনকারীদের সাথেই আছেন’। [সুরা আনফালঃ ৪৬]

সংগৃহীত: ডাঃ রেদোয়ান/Kaziborhan Uddin এর পোষ্ট হতে।

Thursday, 31 August 2017

বনের ভেতর, এক হরিনীর সময় হলো সন্তান জন্ম দেয়ার

বনের ভেতর, এক হরিনীর সময় হলো সন্তান জন্ম দেয়ার।
তাই সে বনের ধারে যেয়ে নদীর পাশে ঘাসজমিতে সুন্দর একটি জায়গা খুজে বের করে নিলো সন্তান জন্ম দেয়ার জন্য। সময় কিছু পার হলো, তার প্রসব বেদনাও উঠলো।
কিন্তু বিধি বাম। এসময় হরিনীটির চারপাশে শুরু হলো বিপদ।
হরিনীটি যখন উপরে তাকালো, দেখলো ঘন মেঘে আকাশ ছেয়ে যাচ্ছে। সে যখন জংগলের দিকে তাকালো, দেখলো ঘন জংগলে হঠাৎ দাবানল শুরু হয়েছে। এর মাঝে সে টের পেলো তার সামনে এক ক্ষুধার্ত সিংহ তার দিকে এগিয়ে আসছে। আর পেছনে ফিরে দেখলো এক শিকারী তার দিকে তীর নিশানা করে আছে।
এখন সে কি করবে?
দিশেহারা সময়টিতে দাবানল, নদীর স্রোত, ক্ষুধার্থ সিংহ আর নির্দয় শিকারী দিয়ে চারদিক দিয়ে ঘিরে থাকা হরিনীটি তাই চুপচাপ কিছুক্ষন চোখ বন্ধ করে ভাবলো। তারপর সে তার সব বিপদ আপদ অগ্রাহ্য করে সিদ্ধান্ত নিলো সে তার সন্তান জন্ম দিবে। বিপদ আপদ যদি ঘটে ঘটুক। সেটির দায়িত্ব সে বিশ্বাসী মনে চোখ বুজে সৃষ্ঠিকর্তার হাতে ছেড়ে দিলো।
সাথে সাথে কিছু মিরাকল ঘটলোঃ
- কালো মেঘে ঢাকা আকাশে তুমুল ঝড় বৃস্টি শুরু হলো। সেই সাথে প্রচন্ড বজ্রপাতে শিকারীর চোখ অন্ধ হয়ে গেলো।
- অন্ধ শিকারী তীর ছুড়ে দিলো। সেই তীর হরিনীর পাশ কেটে সিংহের মাথায় আঘাত করলো।
- তুমুল বৃস্টির জলে জংগলের আগুন নিভে শান্ত হয়ে গেলো।
- হরিনীটি একটি সুস্থ ও সুন্দর শাবকের জন্ম দিলো।

Monday, 28 August 2017

আপনি চাকুরীর চেয়ে উদ্দোক্তা হয়ার জন্য কেন বেশী গুরুত্ব দিবেন তার ৩ টি কারন

আপনি চাকুরীর চেয়ে উদ্দোক্তা হয়ার জন্য কেন বেশী গুরুত্ব দিবেন তার ৩ টি কারন
১।আপনি আপনার কোম্পানির মালিকানা আপনার সন্তানদের কাছে হস্তান্তর করতে পারেন কিন্তু আপনি একই ভাবে আপনার চাকরির স্থানান্তর করতে পারবেন না। তারা নীচে থেকে তাদের কর্মজীবন শুরু করতে হবে
২। যখন আপনি আপনার ব্যবসা সফল হবেন, তখন হাজার হাজার মানুষের জন্য কাজ করার সুযোগ তৈরি করা হবে। হাজার হাজার পরিবার আপনার জন্য ভাল জীবন পাবে।
৩। বর্তমানে চাকুরীর বাজার বেশ প্রতিযোগিতা সম্পন্ন ও হিংস্র প্রকৃতির ।এর মধ্যে যদি আপনি ভাল একটা চাকুরী পেয়ে যান তাহলে ই শেষ নয়। আপনার কলিগ্রা ই আপনাকে নিচে নামাতে সহযোগীতা করবে, আপনার কাধে পা দিয়ে উপরে উঠার চেস্টা করবে আর আপনাকে ভুলে যাবে। সব পরিস্থিতি সামাল দিলে কঠিন পরিশ্রম করে অন্য জনের ব্যবসা কে সফল করে দিবেন।
তাই অন্য জনের ব্যবসা কে সফল না করে একই পরিশ্রম ও মেধার মাধ্যমে নিজের ব্যবসা কে সফল করা টা কি ভাল নয়?

Sunday, 20 August 2017

YouTube Channel দিয়ে Amazon Affiliate করা যাবে কি?

ইউটিউব দিয়ে এমাজন এফিলিয়েট হিসাবে কাজ করা যাবে কিনা এ বিষয়ে অনেকেরই কনফিউশন রয়েছে এবং জানার আগ্রহও রয়েছে। আমি কিছুদিন আগে এমাজন সাপোর্ট সেন্টারে  যোগাযোগ করে  এ বিষয়ে কথা বলে নিশ্চিত হয়েছি, ইউটিউব চ্যানেল দিয়ে এমাজন এফিলিয়েট করা যাবে। তবে কিছু জিনিস খেয়াল রাখতে হবে।


ইউটিউব দিয়ে এমাজন এফিলিয়েট করার ক্ষেত্রে নিচের বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে।

১। চ্যানেল কোয়ালিটিঃ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আপনার চ্যানেলের কোয়ালিটি। নতুন চ্যানেল দিয়ে এফিলিয়েট করা যাবে না। ভিডিও কোয়ালিটি ভাল হতে হবে। এক্ষেত্রে স্লাইড ভিডিও দিয়েও চ্যানেল করা যাবে, কিন্তু স্লাইড কোয়ালিটি ভাল হতে হবে। 
২। অনেকের ক্ষেত্রেই দেখা যায় ইউটিউব একাউন্ট থেকে সেল পাবার কিছুদিন পর একাউন্ট রিজেক্ট করে দেয়। এ বিষয় নিয়ে অনেকের মধ্যেই হতাশা কাজ করে। 

এর অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে চ্যানেলটি সাইট লিস্টে এড করা নেই। এমাজন এফিলিয়েট একাউন্টের  সেটিংস এ গেলে আপনি যে সাইটে এফিলিয়েট কোড ব্যবহার করতে চান, সেটি আগে এড করে নিতে হয়। ইউটিউব চ্যানেলটি আপনার সাইট লিস্টে এড করে নিতে হবে। যদি এড না করেন , কিন্তু চ্যানেল থেকে সেল পান, তাহলে আপনার একাউন্ট ব্যান করে দিবে।

৩। ভিডিও কয়ালিটিঃ স্লাইড ভিডিও বানানোর ক্ষেত্রে কিছু জিনিস খেয়াল রাখতে হবে। যেমনঃ প্রোডাক্ট ইমেজ এমাজন থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে না। অন্য কোন সোর্স যেমন গুগল সার্চ , পিক্সাবে, পিক্সেল থেকে কপিরাইট ফ্রি ইমেজ ব্যবহার করতে হবে। 

৪। ইনফরমেটিভ টাইপের  ভিডিও বানাতে হবে। যেন প্রডাক্ট ইমেজ ব্যবহার না করলেও চলে। 

৫। মিসলিডিং ইনফরমেশন ব্যবহার করা যাবে না। যেমনঃ প্রডাক্ট রেটিং ৩.৫, কিন্তু আপনি দিয়ে রাখলেন ৪.৫। প্রডাক্ট প্রাইস ৫০ ডলার, কিন্তু আপনি দিয়ে রাখলেন ৩০ ডলার এমন করা যাবে না।

সর্বোপরি, ভিডিও মেক করার ক্ষেত্রে খুব সাবধান হতে হবে। কারণ আপনি যখন ওয়েবসাইট দিয়ে এফিলিয়েট করবেন, তখন কোন ভুলের কারণে আপনার একাউন্ট রিজেক্ট করলে, তা সংশোধন করে আবার এপ্লাই করা যায়। কিন্তু ভিডিও ঠিক করার কোন উপায় নেই।

YouTube Amazon Associate: Earn Huge Commissions by Reviewing & Recommending Amazon Affiliate Products Through YouTube Video Marketing Kindle Edition



Friday, 18 August 2017

How To Make Money From Amazon Affiliate Niche Site

আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করবো কিভাবে Niche Site তৈরি করে Amazon Affiliate Program থেকে ইনকাম করা যায়। 

এখানে আপনারা জানবেন কিভাবে একটি পূর্ণ niche site তৈরি করতে হয়। কিভাবে ON Page & OFF Page Optimization তথা একটি সাইটের টোটাল SEO করতে হয়।


ডিজিটাল মার্কেটিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ও ইন্টারনেট মার্কেটিং কি?


নিশ কি?

নিশ কিঃ নিশ কে সহজ ভাষায় বলা যায় “ইন্ডাস্ট্রি”। মার্কেট এ গেলে যেমন দেখা যায় – কাপড় এর দোকান, খাওয়ার দোকান, জিম, বিউটি পার্লার ইত্যাদি। আপনি জানেন ইন্টারনেট এও রয়েছে ফুড এর ওয়েবসাইট, ড্রেস এর ওয়েবসাইট, বিভিন্ন বিউটি প্রডাক্ট ইত্যাদি। এখন খাওয়ার দোকান যেমন হচ্ছে “ফুড ইন্ডাস্ট্রি” এর মধ্যে, একইরকম “ফুড এর ওয়েবসাইট” হচ্ছে “ফুড নিশ” এ। অফলাইন এ ইন্ডাস্ট্রি আর অনলাইন এর ভাষায় “নিশ”। নিশ কে ইন্টারনেট এর বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও প্রডাক্ট এর ক্যাটাগরি ও বলা চলে। যেমন – “Career & Jobs” এই ক্যাটাগরি তে পরবে যত রকম জব ও ক্যারিয়ার ভিত্তিক ওয়েবসাইট, প্রডাক্ট, সার্ভিস। 

বর্তমানে ইঙ্কাম করার সবচেয়ে সহজ পথ হচ্ছে AdSense monetization এবং Amazon Affiliate  Marketing . এর মধ্যে Amazon Affiliate Marketing  হচ্ছে সবচেয়ে সহজ পথ। আমি নিজেও Amazon Affiliate Marketing করি ।

আমি ২০০৯ সাল থেকে অনলাইলন  জগতের সাথে পরিচিত। ২০০৯ সালের প্রথম দিকে odesk এ SEO এর কাজের মাধ্যমে ক্যারিয়ার শুরু করি। এর পর দীর্ঘদিন UpWork, Elance, Fiverr, PeoplePerHour এ ফ্রিলেন্সার হিসাবে কাজ করেছি। 

আমার বিভিন্ন প্রোফাইল লিঙ্কগুলো নিচে দিলাম, এতে আপনাদের বিশ্বাস করে সুবিধা হবে, আমি মিথ্যা বা অসম্ভব কিছু বলছি না। কারণ আমি যখন বলব, নিশ সাইট করে আপনি ১০০০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন, তখন অনেকেই ভাবতে পারেন, এত টাকা বাংলাদেশে কোন সরকারী বড় কর্মকর্তারাও বেতন পায়না, তাহলে নিশ্চয়ই এটা প্রতারণার নতুন ফাঁদ। 

UpWork Profile Link
PeoplePerHour Profile Link

২০১৫ সালে আমি  Amazon Affiliate Program থেকে earn করার জন্য একটা Niche site বানাই এবং কয়েক  মাস পর থেকে ভালো পরিমান সেল পেতে থাকি।

তারপর থেকেই আমার Amazon Affiliate Marketing এর যাত্রা। আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করব কিভাবে Amazon Affiliate Niche Site বানিয়ে এবং SEO করে ইঙ্কাম করা যায়।

কেনো আমি Amazon Affiliate Affiliate  Marketing নিয়ে কাজ করা শুরু করি?

আমি ২০০৯  সাল থেকেই odesk   এ seo করতাম, Fiverr seo, graphic design কাজ করতামপাশাপাশি পড়াশুনা চালিয়ে যেতাম।

কিন্তু প্রব্লেম ছিল, সারাদিন online এ পড়ে থালা লাগছে, কাজ আসলে বিড করা, বিড করতে দেরি হলে আর কাজ পাওয়া যেত না।  বাস্ততার কারণে বাইরে গেলে কাজ হারাতাম।  

এক মাস ভালো ইঙ্কাম করলে পরের মাসে ইঙ্কাম হবে কি হবে না সেই চিন্তায় থাকতাম। তাই সব কিছু চিন্তা করে Amazon Affiliate  Marketing আর blogging শুরু করি এবং তা থেকে একটা পেসিভ ইঙ্কাম আসতে থাকে।

আজ আপনাদের দেখাবো আমি কিভাবে শুরু করছি।  এই case study ফলো করলে আপনি একটা নিশ সাইটের যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। চলুন শুরু করা যাক।

9 easy steps Make Money From Amazon Affiliate Niche  Site

step1: Select A Topic That You Feel Interested
step2: Keywords Research
step3: Domain And Hosting Setup
step4:  Website Architecture
step5: Content Writing and Publishing
step6: Conversion Rate Optimization
step7: SEO And Link Building
step8: Social Share Tricks
step9: Monitor Sale
--------
এবার এই Step গুলা বর্ণনা করা যাক।

Step1: Select A Topic That You Feel Interested
যে কোন কিছু করার আগে প্রথমে মাইন্ড সেট করতে হবে যে আপনি কোন বিষয়ের উপর কাজ করবেন।

আমি সবাইকে বলি Amazon Affiliate niche site শুরু করার আগে অন্তত এক সপ্তাহ amazon সাইট সহ অন্য শপিং সাইট, amazon  niche site গুলা নিয়ে research করতে থাকবেন।

আপনি অনেক niche এর আইডিয়া পাবেন, কিন্তু আপনি যেকোনো একটা select করবেন যেটা আপনার সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে। যদি এমন কিছু select করেন যেটার প্রফিট অনেক বেশি কিন্তু আপনার ভালো লাগে না, তাহলে কদিন পর কাজ করার ধৈর্য হারিয়ে ফেলবেন।

তাই এমন কিছু select করবেন যেন সেই জিনিস নিয়ে কাজ করতে আপনার ভালো লাগে।

Step2: Keywords Research

keywords research ছাড়া seo অচল। তাই আপনাকে ভালো মানের keywords খুঁজে বের করতে হবে। এমন keywords খুঁজবেন যেন সেটা low competitive হয় কিন্তু সার্চ ভলিউম ভালো।

keywords research এর ক্ষেতে আমি প্রথমে আমার মাইন্ড সেট করা প্রোডাক্ট গুলা থেকে খোঁজা শুরু করি।

প্রথমে amazon এর Product Category থেকে পছন্দের প্রোডাক্ট দিয়ে গুগলে সার্চ দেই।

তারপর সেখান থেকে বিভিন্ন website এ যাই এবং প্রডাক্টগুলা থেকে ধারণা নেই, google এর recommend করা Searches related গুলাও দেখি।
এর পর আমি সেগুলার আগে Best বসিয়ে দেখি। যেমন asus laptop for college এর ক্ষেত্রে best asus laptop for college বসাই।

Best+ Product Name
Cheap + Product Name
Top Rate + Product Name
Quality + Product Name
Product Name + For Sale
Product Name + Review/Reviews
Product Name + Coupon
Where Can I Buy + Product Name
Buy + Product Name
Best + Product Name + Review
Best + Product Name + Online
Best + Product Name + Year

সব সময় লং টার্ম চিন্তা করতে হবে।  কমপক্ষে Best বাদে ৩  word কিংবা বেশি  হলে ভালো।

এবার আমি এর সার্চ ভলিউম দেখি google Keyword Planner এর keyword everywhere chrome extension দিয়ে।

এর পর keyword টা google search দিয়ে  moz bar এর সাহায্যে এই keyword এর আদলে বাকি website গুলার DA, PA দেখি।

যদি দেখি  প্রথম পেজে কমপক্ষে ৩ টা website এর  DA, PA  30 এর নিচে তাহলে সেটা আমি ভালো keyword হিসাবে প্রথমিক ভালো নির্বাচন করি। আর যদি ভিডিও থাকে তাহলে আর দেখার দরকার হয় না।

এর পর চুরান্ত ভালো  keyword select করার জন্য আমি kwfinder, semrush আর ahrefs ইউস করি।

মাথায় রাখা দরকারঃ কমপক্ষে ৩ টা website এর  DA, PA  30 এর নিচে, এবং একটা ভিডিও। সবচেয়ে ভালো keyword হয়। এ জাতিও keyword rank করা খুব সহজ হয়।

Main keyword সিলেক্ট করার পর আমি seed keyword select করি, সে ক্ষেত্রে আমি

Google Auto Complete tool
Google Auto-suggest
WordTracker Keyword Tool
UberSuggest

এগুলা ইউস করি। আমি keyword research করার জন্য long trail pro ইউস করি না। কিন্তু রিয়েল সার্চ ভলিউম ডাটা দেখার জন্য long trail pro ভালো।   অন্য প্রিমিয়াম টুলের চাইতে এটার ডাটাকে গুরুত্ব দিলেই হবে। কারণ লং টেইল প্রো সরাসরি গুগল থেকেই কিওয়ার্ড ডাটা কালেক্ট করে।

চুরি মেথডঃ আপনার select করা keyword এর আদলে যে ডোমেইন গুলা আছে সেগুলার URL যদি আপনি google Keyword Planner এ বসিয়ে দিন তাহলে দেখবেন তাদের রাঙ্ক করা সব keyword চলে আসবে :P
এভাবে আমি ম্যানুয়ালি keyword select করি।

কিভাবে Keyword টি কতটুকু Competitive তা বুঝতে পারবেনঃ
আপনার প্রতিযোগীর সাইটগুলা বিবেচনা করলে আপনি আপনার কি-ওয়ার্ড এর কম্পিটিসন আন্দাজ করতে পারবেন।
এগুলো হলো:-

Relevant Content: keyword টি কি কনটেন্ট এর মধ্যে আছে?

Optimized Title : প্রতিযোগীর সাইটে আপনার নির্বাচিত keyword টি কি Title এ ব্যবহার করা হয়েছে?

Targeted Content: সাইটটিতে কি আপনার কিওয়ার্ডের উপর? নাকি জাস্ট পেজে কিওয়ার্ডটি মেনসন করা হয়েছে?

Page Links: উক্ত প্রতিযোগীর পেজে কতগুলো লিংক আছে?

Site Links: Root Domain এর উপর কতগুলো লিংক আছে?

Authority Links: উক্ত সাইটটিতে কি .edu, .gov, DMOZ, or Yahoo Directory link আছে?

Google Page Rank: সাইটটির Google Page Rank কত?

Site Age: Site টি কতদিন আগে তৈরী করা হয়েছে?

গুগল এ কত গুলো লিংক ইনডেক্স আছে ।

উক্ত সাইট গুলোর ব্যাক লিংক কত এবং তারা কি কি ধরনের ওয়েব সাইট থেকে ব্যাক লিংক পেয়েছে, আর এর জন্য আপনি backlinkwatch.com সাইট এর সাহায্য নিতে পারেন।

উক্ত সাইট গুলোর মধ্যে কতো গুলো সাইটের হোম পেজ এসেছে, অর্থাৎ ঐ কী-ওয়ার্ড যে রেজাল্ট এসেছে ওর মধ্যে কতো গুলো সাইটের মেইন ডোমেইন আছে।

Type of Site: রেঙ্ক এ থাকা বা প্রতিযোগী সাইটটি কি দুর্বল প্রকৃতির সাইট?

Step 3: Domain And Hosting Setup
Domain:
এবার আমি keyword এর সাথে মিল রেখে domain select করি। সেক্ষেত্রে মাথায় রাখা দরকার যে আমি এমন কিছু নাম নির্বাচন করবো যেগুলা কে মানুষ brand হিসাবে চিনে।

আপনার ক্ষেত্রে আপনি আপনার best asus laptop for college জন্য, laptopreview, laptopview, laptop, laptopguide এমন.

Product+ Review
Product+ View
Product+ Guide
Product+ Pro
Product+ Lab
Product+ Express
Product+ Garden
Product+ Reviewed

সব সময় .com domain select করার চেষ্টা করবেন।

আপনি এখান থেকে domain name generate করে নিতে পারবেন shopify.com/tools/domain-name-generator.

অনেকে এক্সাপায়ার্ড ডোমেইন নিয়ে কাজ করে, কিন্তু  আমি নতুনদের অবশ্যই অবশ্যই ফ্রেশ ডোমেইন নিয়ে কাজ করার জন্যে উৎসাহিত করবো।
কারণ এক্সাপায়ার্ড ডোমেইন নিয়ে কাজ করা তুলনামূলক রিস্কি। কেনার পূর্বে আপনাকে অনেকগুলো মেট্রিক্স যাচাই বাছাই করে এরপর কিনতে হবে। কোন কিছু তে প্রব্লেম হলে আপনার পুরা সময় + অর্থ বাতিল হয়ে যাবে।

টিপসঃ সব সময় আপনার নিজের নামে real info দিয়ে  domain  নেয়ার চেষ্টা করবেন। আর যদি payment method অন্য কারো থেকে নেন তাহলে, তাঁর ইনফো, payment method  এর document রাখবেন।

 আর  মনে করেন ভুল ইনফো দিলেন কোন কারণে কোম্পানি আপনাকে বেরিফাই করলো, সে ক্ষেত্রে আপনি আপনার rank হউয়া ডোমেইন হারাবেন।

Hosting:

Niche site এর ক্ষেত্রে Hosting নির্বাচন গুরুতপুরন।  আমি সাধারণত Bluehost, Hostgator & SiteGround recommend করি, কিন্তু বাজেট কম থাকলে আপনি namecheap নিতে পারেন।

আমাদের নিস সাইটের জন্য মিনিমাম যে রিকোয়ার্রমেন্টের হোস্টিং লাগবে:
শেয়ার্ড হোস্টিং (ভিপিএস হলে ভাল)

ওয়েব স্পেস: ১ জিবি

বেন্ডউইথ: ১০ জিবি (মান্থলি)

cPanel (হোস্টিং মেনেজমেন্ট করার জন্য)

ইমেইল একাউন্ট

মোটামুটি এই হল রিকোয়েরমেন্ট, আর এই রিকোয়ারমেন্টের হোস্টিং এর দাম বছরে $30  থেকে শুরু করে $50 পড়বে।

আপনার যদি বাজেট ভাল থাকে তাহলে 90$-100$ ডলার   খরচ করে বিদেশি কোম্পানির শেয়ার্ড হোস্টিং কিতনে পারেন। আর এই সব শেয়ার্ড হোস্টিং আপনি একাধিক নিস সাইট হোস্ট/চালাতে পারবেন।

আমি ব্যাক্তিগত ভাবে প্রথম দিকে দেশিয় কোম্পানির হোস্টিং ব্যবহার করেছিলাম। ভাল সাপোর্ট না পাওয়ায় পরে বিদেশি কোম্পানির হোস্টিং ব্যবহার শুরু করি। বলে রাখা ভাল, ভাল কোম্পানির হোস্টিং না নিলে সারা বছর অনেক ঝামেলা পোহাতে হবে। এমনকি ভাল কোম্পানির হোস্টিং না নিলে সে সাইট দিয়ে সার্চ ইঞ্জিনেও ভাল স্থান দখল করা সম্ভব নয়।

হোস্টিং নির্বাচনে বিবেচ্য বিষয়
১। কম দামের হোস্টিং এড়িয়ে চলুন: বাংলায় একটা প্রবাদ আছে- যত গুড় তত মিষ্টিসুতরাং কম দামের হোস্টিং এ সাপোর্ট কম পাবেন, বেশি দামেরটায় বেশি সাপোর্ট পাবেন এটাই স্বাভাবিক। কিছুটাকা বাঁচানোর জন্য এমন মানের হোস্টিং নেওয়া উচিত হবে না যেটা আপনাকে সারা বছর ভুগাবে। ফেসবুকের কল্যানে এখন অনেকেরই স্ট্যাটাস পাওয়া যায় ১০ জিবি হোস্টিং মাত্র ৫০০ টাকায়! দয়া করে এদের এড়িয়ে যাবেন।

২। স্পেস ও বেন্ডউইথ দেখে নিন: যার কাছ থেকে হোস্টিং নিচ্ছেন তার তাছ থেকে ভাল ভাবে আপনার সার্ভারের স্পেস ও ব্যান্ডউইথ বুঝে নিন। সি-পেনেলে ঢুকে চেক করে দেখুন আসলেই কি আপনাকে আপনার কথামতন স্পেস ও ব্যান্ডউইথ দিয়েছে কিনা।

৩। কাস্টমার সাপোর্ট: হোস্টিং কেনার আগে সাপোর্টে ফোন, মেইল বা লাইভে চ্যেট করে দেখুন তারা লাইভ সাপোর্ট কেমন দেয়। সাপোর্ট পেতে দেরি হলে বা কোন গড়িমসি করলে তাদের

কোথা থেকে হোস্টিং কিনবেন?
যদি আপনার পেওনিয়ার মাস্টার কার্ড, পেপাল কিংবা অন্য কোন পেমেন্ট গেট-ওয়েতে একাউন্ট থাকে তাহলে আমি বলব আপনি ইন্টারনেশনাল কোম্পানি থেকে হোস্টিং কিনুন। নিচে কিছু জনপ্রিয় কোম্পানির নাম দেওয়া হল যারা কিনা অল্প দামে ভাল হোস্টিং প্রভাইট করে। এদের কাছ থেকে হোস্টিং কিনলে ১ টা টপ লেভেল ডোমেইন ১ বছরের জন্য ফ্রি পাবেন।

Step 4:  Website Architecture

হোম পেইজ বেইজ  নাকি ডায়ানামিক করবো?

হোম পেইজ বেইজ (স্ট্যাটিক)  বলতে যা চেইঞ্জ হয়না, কম-বেশি সবসময়েই একই রকম থাকে। মূলত মূল কিওয়ার্ডকে টার্গেট করে হোম পেইজে কন্টেন্ট দেয়াকেই হোম পেইজ স্ট্যাটিক রাখা বলে।

ডায়নামিক শব্দের শাব্দিক অর্থ গতিশীল। যা প্রায়ই পরিবর্তিত হয়। ব্লগ স্টাইলে সর্বশেষ পোস্টগুলোকে যখন হোম পেইজে রাখা হয় তখন সেটাকে ডায়নামিক বলে।

আমি কি করি?

যদি খুব ছোট niche site হয় যার seed keyword কম কিংবা খুব দ্রুত rank করতে চাই তাহলে আমি  হোম হোম পেইজ বেইজ (স্ট্যাটিক)  করি।
আর যদি লং টার্ম এ কাজ করতে চাই, seed keyword অনেক, ধিরে ধিরে rank করতে চাই তাহলে আমি সেটাকে ডায়নামিক করি।

Wordpress Setup:
Domain and hosting select করার পর Wordpress Setup দিতে হবে।

কিভাবে niche site এর জন্য Wordpress Setup করি সেটা দেখাবো।

WordPress Theme and Plugins
Niche siteএর জন্য আমি Thrive theme use করি। 
সাথে এই প্লাগিন গুলা থাকে

  1. Yoast SEO
  2. Jetpack by WordPress.com
  3. Akismet
  4. Wp-rocket
  5. Q2W3 Fixed Widget
  6. Contact Form 7
  7. TablePress
  8. Thrive Content Builder
  9. WP Smush

জেনারেল সেটিংস সাধারণত ওয়ার্ডপ্রেসের কিছু মৌলিক সেটিংসের সমন্বয়ে গঠিত। এই সেটিংস অনেক দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ, কারন এর মাধ্যমে একটি ব্লগের নামকরণ এবং অ্যাড্রেসিং করা হয় যাতে করে পাঠকেরা সহজেই বুঝতে পারে ব্লগের উদ্দেশ্য সম্পর্কে।

সাইট টাইটেল এবং ট্যাগলাইন

সাইট টাইটেল এবং ট্যাগলাইন আপনার ব্লগ এবং ব্লগের বিষয়বস্তুর ক্ষেত্রে অনেকটা আয়নার মতো কাজ করে, যা আপনার ব্লগের উদ্দেশ্যকে প্রতিফলিত করে। এটা SEO এর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সাইটের টাইটেল যতটা সম্ভব সংক্ষিপ্ত (৬০-৭০ অক্ষরের মধ্যে) রাখুন ব্লগের লক্ষ্য স্থির রেখে। এরপরে আপনার ব্লগের জন্য ট্যাগলাইন লিখুন, যা হবে ব্লগের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা। এটি আপনি একটু বড় (১৬০-১৭০ অক্ষরের মধ্যে) করে লিখতে পারেন ওয়ার্ডপ্রেসের ডিফল্ট ট্যাগলাইন “Just another WordPress site” মুছে দিয়ে। খেয়াল রাখবেন ট্যাগলাইন বা সংক্ষিপ্ত বর্ণনাতে আপনার ব্লগটি কি বিষয়ে তা যেন উপস্থাপিত হয়। আপনি পরে যেকোনো সময় চাইলে সাইট টাইটেল এবং ট্যাগলাইন পরিবর্তন করতে পারবেন।

আমি সব ক্যাটাগরি এবং ট্যাক্সনমিতে No-Index, No-Follow tag ব্যবহার করি। এতে করে Internal Duplicate Content Issues  প্রবলেম হয়না। 

Reading সেটিংস

প্রথমেই "Front page displays" এ বাই ডিফল্ট "Your latest posts" অপশনটি তথা ব্লগ সিলেক্ট থাকে। আপনি যদি চান হোম পেজে ব্লগ থাকবেনা বরং থাকবে আমার নিজের তৈরী কোন পেজ তাহলে "A static page" রেডিও বাটন সিলেক্ট করে "Front page" ড্রপডাউন থেকে আপনার তৈরী পেজটি সিলেক্ট করে দিন এবং "Post page" ড্রপডাউন থেকে ব্লগ পেজটি সিলেক্ট করতে পারেন। Post page এ যে পেজটি সিলেক্ট করবেন, সেই পেজে যখন যাবে তখন সেটাই হবে আপনার ব্লগ।

"Blog pages show at most" এই টেক্সট বক্স যে সংখ্যা দিবেন ততটি পোস্ট ব্লগ পেজে দেখাবে।

"Syndication feeds show the most recent" থেকে ফিডে সাম্প্রতিক/সর্বশেষ কতটি পোস্ট দিবে সেটার সংখ্যা পরিবর্তন করতে পারেন। RSS বা ফিড দিয়ে অনেকে ব্লগে সাবস্ক্রাইব করেনা? সেটাই এটা। যে সাবস্ক্রাইব করবে সে সর্বশেষ কতটি পোস্ট দেখবে সেই সংখ্যা এখান থেকে ঠিক করে দিন।

"For each article in a feed show" এখান থেকে ঠিক করে দিতে পারেন যে ফিডে পুরো পোস্ট দেখবে নাকি পোস্টের কিছু অংশ দেখবে।

"Discourage search engines from indexing this site" টিক দেয়া থাকলে সার্চ ইন্জিন এই সাইটটি আর তার ডেটাবেসে নিবেনা ফলে সার্চ রেজাল্টে আপনার সাইট দেখাবেনা। এটা তখনি টিক দিয়ে রাখবেন যখন পরীক্ষামূলক কোন কাজ করছেন। যেমন আমার এই উদাহরনটি যদি আমি লোকালহোস্টে না দেখিয়ে live সার্ভারে দেখাতাম তাহলে আমারও উচিৎ হত কি দিয়ে রাখা। কেননা টিউটোরিয়ালে দেখানোর জন্য শুধু এটা করছি, সার্চ ইন্জিন এটা নিয়ে কি করবে।

আপনার সাইটের URL কেমন দেখাবে এটা এখানে ঠিক করে দেয়া
"Day and Name" রেডিও চেক দিলে URL এ পোস্টের টাইটেল (শিরোনাম) দেখাবে তবে এর আগে বছর/তারিখ/মাস থাকবে যেমন রেডিও বাটন বরাবর URL এর উদাহরনও দেয়া আছে। এটা একটু সার্চ ইন্জিন বান্ধব URL.

"Month and Name" দিলে শুধু বছর এবং মাস এরপর পোস্টের টাইটেল।
"Numeric" দিলে আইডি দিয়ে আর্টিকেল/পোস্ট/আর্কাইভ গুলি দেখাবে।
"Post name"  দিলে সবচেয়ে সুন্দর দেখায়। শুধু পোস্টের টাইলে থাকবে URL এ এবং সবচেয়ে ভাল সার্চ ইন্জিন বান্ধব URL হবে।

"Custom Structure" থেকে URL নিজের মত করে ফরমেট করে নিতে পারেন। এজন্য বেশ কিছু অপশন/ট্যাগ আছে যেগুলি ফিল্ডে ব্যবহার করে URL চমৎকার করে নেয়া যায়।

Step 5: Content Writing and Publishing


পিলার কন্টেন্টের আরটিকেল লেখা, প্ল্যান ও মেইনটেন্যান্স নিয়ে কিছু নতুন কাজের স্ট্র্যাটেজি

  বেইজড অ্যাফিলিয়েট বিজনেস মূল আরটিকেল বা পিলার কন্টেন্টের লেখাগুলোয় যেগুলা মাথায় রাখবেনঃ

১. অপ্রয়োজনীয় ভূমিকা, উপসংহার, বর্ণনা বাদ। অপ্রয়োজনীয় ভূমিকা ভূমিকাতেই পাঠককে বিদায় জানায়, বর্ণনা বর্ণনাতে পাঠককে বিদায় জানায় আর অপ্রয়োজনীয় উপসংহার? ইয়ে, ওটা পাঠককে তিক্ত করে। 😛
২. ফ্যাটি ভূমিকাও বাদ। চেষ্টা থাকবে প্রথম বাক্যে পাঠককে আটকে ফেলার এবং তার পরের বাক্যগুলোয় যদি আটকানো না যায়, তবে সরাসরি বর্ণনার।
৩. একটা কথা সত্যি। আমেরিকনারা সংখ্যা এবং বিজ্ঞানের পূজারী। ভূমিকাতেই কোনও স্ট্যাট যুক্ত করুন (ক্যালটেকের মতে ৭৯% আমেরিকান এইটা করে/এই সমস্যায় ভোগে) এবং যুক্ত করুন তরকারিতে জাফরান দেয়ার মত করে বিজ্ঞান। (ক্যালটেকের সাম্প্রতিক কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, এই জিনিসটা এইভাবে এই সমস্যা সমাধান করতে পারে)
৩. প্রতিদ্বন্দ্বীদের আরটিকেল হল এক্ষেত্রে স্বর্ণখনি। তারা যদি বেস্ট টেন দিয়ে থাকে, আপনি দেবেন টোয়েন্টি। তাদের মধ্যে একজনও টোয়েন্টি দিয়ে থাকলে আপনি দেবেন থারটি। আর যদি এত অপশন না থাকে? চিকণ নিশ ক্ষেত্রবিশেষে চিকণ পিনের চার্জার হইয়া আত্মপ্রকাশ করে।
৪. একটাও বাড়তি কথা থাকবে না, কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বীদের সবার চেয়ে আপনার আরটিকেল বড় হবে। এতটাই বড় হবে, যেন পার্থক্যটা চোখে পড়ে।
কীভাবে?
প্রথমত: টপিকটার গভীরে যাবেন। কিন্তু পাঠককে টেকি মনে করবেন না। তাতে করে একটু ফ্লাফি আকারে বাক্য লেখা যায়। পাঠকও খুশি। এটা হল কনভারসিভ প্রসেস।
দ্বিতীয়ত: টপিকটার আশপাশের বিষয়গুলো নিয়ে কার্যকর আলাপী ভঙ্গীতে লিখবেন- মজার বিষয় হল, আমি যতদূর দেখলাম, প্রায় সব অ্যাফিলিয়েট আরটিকেল কনভারসিভ, অর্থাৎ একই বিষয়ের উপর আরো বেশি ফোকাস করে। কিন্তু ডাইভারসিভ নয়। অর্থাৎ, বিষয়টার আশপাশে যা আছে, সেগুলো নিয়ে আলাপ করে না। অন্যভাবে বলতে গেলে-

৫. শুধু পণ্য ও পণ্যটার সেবার উপর ফোকাস নয়। পণ্যটা যে সমস্যা সলভ করার জন্য এসেছে সেটার উপরও ফোকাস। এবং সেই সমস্যার আশপাশের বিষয়গুলোর উপর ফোকাস।
উদাহরণ? যদি আপনি সায়েন্টিফিক ক্যালকুলেটর বিক্রি করতে চান তবে বাচ্চার ম্যাথের মাথা আরো তীক্ষ্ণ কীভাবে হবে সে নিয়েও আলাপ করবেন। খোদ্ পণ্যের মূল বর্ণনার মধ্যেই। রহস্যটা তো এখানেই।
৬. আরটিকেলকে বড় করার আরেকটা সিস্টেম হল, যে কোম্পানির পণ্য সেই কোম্পানি এবং তার রেপুটেশন নিয়ে আলাপ করা।
৭. আরটিকেলে সব সেকশন বিক্রির জন্য রাখবেন না। ধরা যাক, সূত্রানুযায়ী আপনি ৭০-১৫০ ডলার দামের পণ্যই শুধু পুশ করতে চান। সব ঠিক আছে: এই দামটাই মানুষ বেশি কেনে এবং এই দামটাতেই আমরা বেশি কমিশন পাবো। কিন্তু, এই দামে আপনি কয়টা বেস্ট পণ্য পাবেন? খুব কম। খুব কম পণ্য দিয়ে আরটিকেল আর কত বড় এবং বিচিত্র হবে? ওইতো, খুব কম। আমরা জানি, ৫০০ থেকে ১৫০০ ডলারের পণ্যটা ক্রেতা আমার লিংক থেকে এখনি কিনবে না। কিন্তু শাঁসালো রিভিউ দিন ওটা নিয়েই। সে কিনবে না, কিন্তু ওই রিভিউর জন্য আপনার আরটিকেলে বারবার আসবে। কারণ, বেশি দামিটার প্রতি তার আগ্রহ আছে।  আর সেইসাথে কিছু ১০-৫০ ডলারের বেস্টসেলার পণ্যও নিজের বুক চেপে ধরিয়ে দিন। হাজার হলেও, বেস্টসেলার শব্দটার সাথে কোথায় যেন বেস্টও যুক্ত আছে। আর আপনার রিভিউ তো বেস্ট নিয়ে!
৮. একইভাবে, কিছু পণ্য ঢুকিয়ে দিন, যেগুলোর রিভিউ সংখ্যা অত্যন্ত কম হলেও রেপুটেড প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছে। কিছু পণ্য দিন যেগুলো খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানের নবাগত জিনিস।
৯. এবং এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, নিজের নিশ থেকে সম্পূর্ণ বেরিয়ে গিয়ে আচমকা ১ বা দুটা পণ্য যুক্ত করুন লিস্টে- যা এই পণ্য যে সেবা দিচ্ছে সেই সেবার সাথে জড়িতসূত্রে খালাতো ভাই। বিশ্বাস করুন, এই অযাচিত কাঁচামরিচটা কিছু পাঠকের বেশি ভাল লাগে। হিটটা মজার হবে, যখন সেই পণ্যটার কথা আপনার পাঠক আগে জানতোই না, বা পণ্যটার ইউটিলিটির কথা ভাবেওনি। তবে এটাকে ‍যুক্ত করার সময় যুক্ততার যুক্তি খুব আঁটঘাঁট বেঁধে তৈরি করে নেবেন।
১০. আরটিকেলটাকে সিএনজি পাম্প না বানিয়ে আবাসিক হোটেল বানানোর চেষ্টা করুন। আমাদের লক্ষ্য থাকে, কোনক্রমে ট্রাফিককে আরটিকেলে এনেই কোন না কোনভাবে আমাজনে ছুঁড়ে দেয়ার। রেপুটেশন দাঁড়ায় না শেষ পর্যন্ত। আরটিকেলটায় ঠাসবুনন দিয়ে এমন কিছু তথ্য এবং ব্যবহার দিন, যেগুলো একজন মানুষের বারবার লাগবে। যেগুলো নিয়ে পড়তেও মজা পাবে, বা জানাটা জরুরী মনে করবে- এক্ষেত্রে মানুষ কিছু অদ্ভুত আচরণ করে। কেউ কেউ তো বুকমার্ক করে রাখে, কেউ আবার পরে পাবার আশায় শেয়ার করে ফেলে। নানা প্ল্যাটফর্ম এ।
১১. আরটিকেলটায় স্বপ্ন ধরিয়ে দিন। সত্যি, পণ্য ধরানোর চেয়ে স্বপ্ন ধরানো সহজ। তার জীবন, তার চারপাশ নিয়ে আপনার নিশ রিলেটেড কিছু নতুন বলুন। তার যে সুবিধার জন্য অথবা যে সমস্যা সমাধানের জন্য এ পণ্যটা দরকার ছিল- এর বাইরে আচমকা নতুন কোনও ইউটিলিটি জানান।
১২. জায়ান্টরা ছাড়া কেউ মাসে-দু মাসে আরটিকেল আপডেট করে না। এটা করুন। শুধু গুগল খুশি না, গ্রাহকরাও আসবে। এটা তাদের বেড়ানোর জায়গা হবে। আপনারই নিশ, নতুন তথ্য যোগ করা কোন ব্যাপার হবার কথা না।
১৩. আরটিকেলটাকে ফোরাম ফোরাম রূপ দিন। অর্থাৎ, কমেন্টের সুযোগ শুধু রাখবেন না, কমেন্টের জবাব দেবেন ভরপুর এবং প্রশ্নকর্তার চাওয়া অনুযায়ী এর ভিতরে বদলও করবেন এবং বদল করে তা মন্তব্যে জানাবেনও।
১৪. ফেসবুক থেকে মন্তব্য করার অপশান রাখুন। এটা একটা মারাত্মক এসইও, ট্রাফিক সোর্স এবং শেয়ার সোর্সও।

Step 6: Conversion Rate Optimization
1.      Explain why you included that product
2.      Product Image
3.      Pros and Cons
4.      Buyer’s Guide
5.      Related Articles

Explain why you included that product: কি জন্য প্রোডাক্ট select করলেন সেটার বর্ণনা দিতে হবে।
Product Image: প্রোডাক্ট ইমেজ এর জন্য ফ্রি ইমেজ সাইট থেকে ছবি সংগ্রহ করবেন। না পাইলে অন্য সাইট থেকে ইমজ নিয়ে এডিট করে নিজের সাইটে দিতে পারেন।
Pros and Cons: প্রোডাক্ট এর রিভিউ দেখে প্রোডাক্ট এর ভালো এবং খারাপ দিক বর্ণনা করবেন
Buyer’s Guide: প্রোডাক্ট কেনার আগে কি কি বিষয় মাথায় রাখবেন সেটা লিখবেন
Related Articles: seed keyword দিয়ে লিখা  Related Articles গুলা লিংক করে দিবেন
প্রোডাক্ট লিংক কথায় কথায় বসাবেন?
১। ইমেজে
২। প্রথম লাইনের প্রোডাক্ট নেমে
৩। বাটন করে

Step 7: SEO and Link Building

Google, Yahoo, Ask ইত্যাদি হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন। এর মধ্যে গুগল সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন। সার্চ ইঞ্জিন এর মাধ্যমে আপনি সার্চ ইঞ্জিনকে কোন বিষয়ের উপর তথ্য জানতে চাইলে সে আপনাকে সেই অনুযায়ী সম্ভাব্য সবচেয়ে ভালো সাইট গুলা আপনার কাছে দেখাবে। যেইগুলাতে ভিসিট করে আপনি আপনার সেই বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। মনে করুন আপনি

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কেন করবো ???

- প্রথম কথা সাইট এর ভিজিটর বাড়ানোর জন্য।
-নিজের সাইটকে জনপ্রিয় সাইট এ তৈরি করার জন্য।
- বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দিয়ে আয় করার জন্য। আর নিজের সাইট এ বিজ্ঞাপন লাগানোর জন্য প্রথমে ভিজিটর বেশি থাকা লাগবে।
-সার্চ ইঞ্জিন এর প্রয়োজনীয়তা !!!

সার্চ ইঞ্জিন এর প্রয়োজনীয়তা ব্যাপক। এইটা বলে শেষ করা যাবে না। ধরেন আপনি একটা সাইট করলেন কিন্তু সেই সাইট সম্পর্কে কেউ জানেই না তাহলে ভিজিটর আসবে কোথা থেকে। তখন আপনি ছাড়া ঐ সাইট এর ভিজিটর আর কেউ নাই 😛 এখন আপনি ফেসবুক এ বা বিভিন্ন সোশ্যাল সাইট এ শেয়ার করে আর আপনার বন্ধুবান্ধবদেরকে বলে সাইট এর কিছু ভিজিটর আনতে পারেন কিন্তু সাইট এর মুল ভিজিটর পেতে হলে এসইও অনেক জরুরি।

 আবার দেখুন বিডিতে প্রতিদিন কত সাইট তৈরি হচ্ছে। এখন মানুষ এর মধ্যে হাতেগোনা ১০টা সাইট এর নাম মনে রাখে। কিছু বুকমার্ক এ রাখে। কিন্তু তারা যখন কোন কিছুর দরকার হয় তখন সে গুগল এ সার্চ দেয় তখন সে যদি রেসাল্ট এ আপনার সাইট পেয়ে যায় এবং ভালো কন্টেন্ট পায় ভিতরে তাহলে সে আপনার সাইট এ আবার ঘুরতে আসবেই 😀

আপনি যদি সাইট এ গুগল আডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করার প্লান করে থাকেন তাহলে আপনাকে এসইও ছাড়া কোন উপায় নাই। কারন গুগল কখনও আপনার এমন সাইটকে অ্যাডসেন্স দিবে না যার সাইট এর ট্রাফিক কম।

এসইও আবার ২ প্রকার।

 -অনপেজ অপটিমাইজেশন
 -অফপেজ অপটিমাইজেশন

অনপেজ অপটিমাইজেশনঃ

একটা ওয়েবসাইট এর মধ্যে যেসকল অপটিমাইজেশন করা হয় সব অনপেজ অপটিমাইজেশন। একটা ওয়েবসাইট তৈরির সময় এর ভিতরে কিছু এসইও  অপটিমাইজেশন এর কাজ করতে হয়। কারন এর মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন আপনার সাইট খুজে পাবে। তাই একটা ওয়েবসাইট এর ভিতরে এসইও এর যা কিছু করা হয় সব অনপেজ অপটিমাইজেশন।
অনপেজ অপটিমাইজেশন এর বিষয়বস্তুঃ

১। কি- ওয়ার্ড রিসার্চ
২। কনটেন্ট
৩। মেটা ট্যাগ এবং মেটা ডিস্ক্রিপশন
৪। গুগল সাইট ম্যাপ
৫। XML সাইট ম্যাপ

এগুলা হচ্ছে সবচেয়ে দরকারি জিনিস। এছারাও আরও কিছু আছে যেমন
৬। টাইটেলে ট্যাগের ব্যবহার
৭। ALT ট্যাগের ব্যবহার
৮। h1-h6 ট্যাগের ব্যবহার


অফপেজ অপটিমাইজেশনঃ

ওয়েব সাইট এর বাইরে থেকে ওয়েবসাইট এর জন্য যেসকল কাজ করা হয় সেগুলা হচ্ছে অফপেজ অপটিমাইজেশন। একটা সাইট এর ট্রাফিক জত বেশি এর মূল্য সার্চ ইঞ্জিনের কাছে তত বেশি। এইটা অনেকটা মার্কেটিং এর মত। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইট প্রচারের জন্য যেই মার্কেটিং করা হয় সেইতা হচ্ছে অফপেজ অপটিমাইজেশন।

অফপেজ অপটিমাইজেশন এর গুরুত্ব অনেক বেশি। এর মাধ্যমে আপনার সাইট এ প্রচুর ট্রাফিক বা ভিজিটর আনতে পারবেন। আর সাথে এটি সার্চ ইঞ্জিন এর রাঙ্কিং এ উপরে উঠতেও সাহায্য করবে।

অফপেজ অপটিমাইজেশন এর বিশয়বস্তুঃ

১। ব্যাক লিঙ্কিং
২। ফোরাম পোস্টিং
৩। সোশ্যাল বুকমারকিং
৪। ইয়াহু এন্সার ব্যাকলিঙ্কং
৫। আর্টিকেল সাবমিশন
৬। আর্টিকেল রাইটিং
৭। অ্যাংকর টেক্সট
৮। ব্লগ কমেন্ট
৯। ভিডিও পোস্টিং
১০। ইমেজ পোস্টিং
১১। পিডিএফ সাবমিশন
১২। RSS সাবমিশন
১৩। Review Site সাবমিশন
১৪। Classified সাবমিশন
১৫। সার্চ ইঞ্জিন সাবমিশন
১৬। ডিরেক্টরি সাবমিশন
১৭। লিঙ্ক হুইল
১৮। লিঙ্ক এক্সচেন্জ
১৯। প্রোফাইল পোস্টিং

Step 8: Social Share Tricks
social share  এর জন্য I chose AddmeFast.com

It is a 3 step process…

-Just tweet your article and pin it on Pinterest once.
-Add your tweet and pin on AddMeFast and start a retweet and repin campaign.
-Don’t overdo it, just do itslowy and steady (Less than 10 retweets and repins a day).

That is how I got that massive amount of social shares.

Amazon affiliate account signup:  সাইটর সব কাজ শেষ করার পর, ভিসিটর আসা শুরু হলে আপনি Amazon affiliate account এর জন্য https://affiliate-program.amazon.com/ apply করবেন। কারণ সেল না হলে ৯০ দিন পর account ban করে দিবে। প্রথম সেল আসার পর amazon associates থেকে manual check up করবে এবং সব ঠিক ঠাক থাকলে আপনার site approve করবে
Product link: পোস্ট ইনডেক্স হউয়ার পর প্রোডাক্ট লিংক বসানো ভালো, আমি  সাধারনত কন্টেন্ট পাবলিশ করার ১৫ দিন পর আমি বসায়।
Images: যেহেতু আমাদের কাছে প্রোডাক্ট নেই, তাই  ইউনিক ইমেজ পাওয়া সম্ভব না। সে ক্ষেত্রে আমি ইমেজ কিনে নিয়ে পারেন। সম্ভব না হলে অন্য ই-কমাস সাইট থেকে ইমেজ নিয়ে নিজের মতো করে এডিট করে বসাবেন। কখনোই সরাসরি কপি করে বসাবেন না।

এখন আপনার পালা। আশা করি  আমার গাইড আপনাদের কাজে লাগবে, তো   শুরু করে দিন। কোন সমস্যা হলে আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। আমি আপনাদের Niche site এবং SEO নিয়ে সাহায্য করবো।

Case study টা আপানদের কোন কাজে লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না.